বনানী কবরস্থানে শায়িত হলেন স্যার ফজলে হাসান আবেদ

সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় চীর বিদায় নিলেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ। সকালে আর্মি স্টেডিয়ামে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয় ফুলেল শ্রদ্ধা। তাঁর কর্মময় জীবন স্মরণ করে বিশিষ্টজনরা বলেন, বিদায় নিলেও ফজলে হাসান আবেদ বেঁচে থাকবেন তাঁর উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে। সর্বসাধারনের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য রবিবার সকালে ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বনানীর আর্মি স্টেডিয়ামে। স্যার ফজলে হাসান আবেদকে শ্রদ্ধা জানাতে আর্মি স্টেডিয়ামে ১০টার আগে থেকেই মানুষ আসতে শুরু করে। সাড়ে দশটায় শুরু হয় শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব। শুরুতেই রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

রাষ্ট্রপতির পক্ষে মেজর আশিকুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে উপ সামরিক সচিব কর্নেল মো. সাইফুল্লাহ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপরই জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী স্যার আবেদকে শ্রদ্ধা জানান। ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। দলের সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ শ্রদ্ধা জানায় ফজলে হোসেন আবেদের মরদেহে। তারা তৃণমুলের মানুষের জন্য ফজলে হোসেন আবেদের কর্মময় জীবনের কথা স্মরন করেন।  নোবেল জয়ি ড. মুহম্মদ ইউনুসসহ সমাজের নানা শ্রেণী পেশার মানুষ শ্রদ্ধা জানান গুনী এ মানুষের মরদেহে।  সর্বসাধারনের শ্রদ্ধা শেষে আর্মি স্টেডিয়ামেই অনুষ্ঠিত হয় ফজলে হাসান আবেদের জানাযা।  জানাযা শেষে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এদিকে, ফজলে হাসান আবেদের স্মরণে মহাখালীতে ব্র্যাকের প্রধান কার্যালয় ব্র্যাক সেন্টারে খোলা হয়েছে শোকবই।

 

You may also like

জেলায় জেলায় হোম কোয়ারেন্টিনের সংখ্যা বাড়ছে

নোয়াখালীতে সর্দি-কাশি, জ্বর আক্রান্ত হয়ে এক যুবক মারা