সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবিরের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রথিতযশা সাংবাদিক, লেখক, মুক্তিযোদ্ধা আমানুল্লাহ কবিরের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ (শনিবার, ১৬ জানুয়ারি)। দিনটি স্মরণে শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) নিজ জেলা, জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার ফুলকোচা ইউনিয়নের রেখিরপাড়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর কবর জিয়ারত, ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এর আগে, রেখিরপাড়া জামে মসজিদে বাদ জুমা, সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবিরের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনায় বিশেষ দোয়া হয়। এসময় তাঁর সন্তানসহ পরিবার-পরিজন, স্থানীয় সাংবাদিক ও গুণগ্রাহীরা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবির ১৯৪৭ সালের ২৪ জানুয়ারি জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার ফুলকোচা ইউনিয়নের রেখিরপাড়ায় এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৯ সালে দৈনিক পয়গাম পত্রিকা দিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন। ১৯৭১ সালে ইংরেজি সাংবাদিকতার সঙ্গে জড়িত হন। দ্য পিপল-এ কাজ করার সময় শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হামলা চালিয়ে ওই পত্রিকার অফিসটি গুঁড়িয়ে দেয়। অল্পের জন্যে প্রাণে বেঁচে যান তিনি। পরে তিনি ঢাকা নগরী ছেড়ে জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার রেখিরপাড়ায় ফিরে যান এবং সক্রিয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন।

স্বাধীনতার পর দ্য পিপল পুনরায় আত্মপ্রকাশ করলে তিনি আবার এ পত্রিকায় যোগ দিয়ে স্বাধীন বাংলায় সাংবাদিকতা শুরু করেন। এরপর দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্টে নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আমানুল্লাহ কবীর বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার পরিচালক ও ব্যবস্থাপনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন ছাড়াও দেশের অনেক সংবাদপত্রে নিষ্ঠার সাথে সাংবাদিকতা ও সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করেছেন। সাংবাদিকতা পেশার শত ব্যস্ততার মাঝেও তিনি কবিতা, গল্প ও বেশ কিছু প্রবন্ধ লিখেছেন। তাঁর লেখা ১০টি বইও দেশে বিদেশে বেশ সমাদৃত। ডায়াবেটিক ও কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ২০১৯ সালের ১৬ জানুয়ারি ঢাকায় ইবনে সীনা হাসপাতালে ৭২ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন খ্যাতিমান এই সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবির।

You may also like

জিয়াউর রহমানের অবস্থান স্বাধীনতাযুদ্ধের ইতিহাসের ক্ষুদ্র জায়গায় : কৃষিমন্ত্রী

পাকিস্তানের এ দেশীয় দোসর ও তাঁবেদাররা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা