দুর্নীতির তালিকায় বাংলাদেশের আরও অবনতি

বিশ্বে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় এবার বাংলাদেশের অবস্থান ১২তম এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। দুর্নীতির সূচকে এমন অবস্থানকে বিব্রতকর বলছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবি। তবে, সরকারের বর্তমান দুর্নীতিবিরোধী কঠোর অবস্থানকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে তারা ।

মঙ্গলবার ২৩তম বারের মতো বিশ্বব্যাপী দুর্নীতি ধারণা সূচক প্রকাশ করে জার্মানির বার্লিনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল। ২০১৮ সালের সিপিআই সূচকে ১৮০টি দেশের মধ্যে ৮৮ স্কোর নিয়ে সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ হয়েছে ডেনমার্ক। এরপরই দ্বিতীয়তে নিউজিল্যান্ড এবং তৃতীয়তে  ফিনল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, সুইডেন ও সুইজারল্যান্ড। এবার দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকার শীর্ষে সোমালিয়া, দ্বিতীয়তে সুদান এবং তৃতীয়তে ইয়েমেন ও উত্তর কোরিয়া। টিআইবির প্রতিবেদনে বিশ্বে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ১২তম। যা ২০১৯ এর তুলনায় দুই ধাপ এবং ২০১৭ এর তুলনায় চার ধাপ নিচে। দুর্নীতিতে দক্ষিণ এশিয়ায় আটটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। আর এশিয়ার ৩১টি দেশের মধ্যে চতুর্থ।

এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান জানিয়েছেন, ব্যাংকিং খাতে সুশাসনের অভাব, দায়িদের শাস্তি না হওয়াসহ বিভিন্ন কারণে দুর্নীতি বেড়েছে। ঋণ খেলাপী, অবৈধ অর্থ পাচার, ভূমি দখলের মতো অপরাধ দমনের পাশাপাশি দুর্নীতি দমন কমিশনকে শক্তিশালী করার পরামর্শ দিয়েছে টিআইবি।

অবশ্য, দুর্নীতি দমনে সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছারও প্রশংসা করেছে সংস্থাটি। দুর্নীতিরএই সূচক রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয় বলেও দাবি করেছে টিআইবি।

You may also like

করোনায় ৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৬১৯ জন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও সাত জন