ধেয়ে আসছে আজ বাংলাদেশে ঘুর্ণিঝড় ফণী

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সংলগ্ন সীমান্ত দিয়ে আজ সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে বাংলাদেশে আঘাত হানতে পারে ঘুর্ণিঝড় ফণী। এরই মধ্যে সাড়ে বার লাখের বেশী মানুষকে তাদের বাড়ি-ঘর থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ঘুর্ণিঝড় দুই থেকে চার ফুট জ্বলোচ্ছাসসহ বাংলাদেশের খুলনা-সাতক্ষীরা অঞ্চলের উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হানতে পারে বলে আশঙ্কা আবহাওয়া অধিদপ্তরের। খুলনা ও বরিশালের আশপাশের উপকূলীয় জেলায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত ও চট্টগ্রাম এলাকায় ৬ নম্বর বিপদ সংকেত বহাল আছে। এদিকে, ঘুর্ণিঝড় ফনীর প্রভাবে যে কোন ধরনের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয়। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ফনি শুক্রবার সকালেই ভারতের উড়িশ্যায় আঘাত হানে। সেখানে ঘূর্ণিঝড় ফনীর বাতাসের গতিবেগ ছিলো ঘন্টায় ১৭৫ -২০০কিলোমিটার।

আবহাওয়া অফিস বলছে, ঘুর্ণিঝড়টি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ পর্যন্ত ধীরে ধীরে অগ্রসর হলেও, এখন বেশ দ্রুত গতিতে বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকুলীয় অঞ্চলের দিকে এগিয়ে আসছে। খুলনা ও বরিশালের উপকূলীয় এরই মধ্যে ফনির অগ্রবর্তী অংশের প্রভাব শুরু হয়েছে।এখন পর্যন্ত ঝড়ের গতিবেগ অনুযায়ী আবহাওয়া অফিস ধারনা করছে বাংলাদেশ ভারতের সীমান্ত বরাবর এটি উত্তর দিকে অগ্রসর হবে। এদিকে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ফণীর প্রভাবে উপকূলীয় অঞ্চলে জলোচ্ছাস হতে পারে। যার উচ্চতা পৌঁছাতে পারে পাঁচ থেকে ছয় ফুট পর্যন্ত। ফণীর প্রভাবে শনিবার পর্যন্ত সারা দেশেই দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া থাকবে বলেও জানাচ্ছে আবহাওয়া অফিস। ফণি বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশের আগ পর্যন্ত খুলনা-বরিশাল- চট্টগ্রাম উপকূলিয় এলাকার জনসাধারণকে সর্বচ্চো সতর্ক থাকার পাশাপাশি এবং আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানের আহবান জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

 

You may also like

রাস্তাঘাট এখন ইতিহাসের সবচেয়ে ভাল অবস্থায় : ওবায়দুল কাদের

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ইতিহাসের