সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় নৌকা ডুবে করুণ মৃত্যু ভাই-বোনের

রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় নৌকা ডুবে করুণ মৃত্যু হয়েছে আপন ভাই-বোনের। শুক্রবার ভোর সাড়ে ছ’টায় মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় মা, এক সন্তান ও মামা বেঁচে যান। নদীতে ডোবার প্রায় ছ’ঘন্টা পর ডুবুরী দল খুঁজে পায় বারো বছরের ভাই মেশকাত ও পাঁচ বছরের বোন নুসরাতের মৃতদেহ। বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান বলেছেন, স্থানীয় ব্যবসায়ি ও রাজনীতিকদের কারণে টার্মিনাল থেকে সরানো যাচ্ছে না নৌকা ঘাটটি । আপস
বারো বছরের ছেলে মেশকাত ও পাঁচ বছরের মেয়ে নুসরাতকে হারিয়ে এমনই বুকফাটা আর্তনাদ বাবা বাবুল মিয়ার।  ঈদের ছুটি শেষে শুক্রবার ভোরে বরিশাল থেকে লঞ্চে এসে সদরঘাট টার্মিনালে নামেন মা জোসনা বেগম। সাথে ছিলো পাঁচ মাসের এক সন্তান, ছেলে মেশকাত, মেয়ে নুসরাত ও ভাই শামীম মৃধা। জিনজিরার বাসায় যেতে ঘাট থেকে নৌকায় চড়েন পাঁচজন।

কিন্তু পূবালী-৫ লঞ্চের ধাক্কায় ডুবে যায় নৌকাটি। পাঁচ-মাসের সন্তানসহ মা জোসনা ও তার ভাই শামীম প্রাণে বাঁচলেও নদীতে ডুবে যায় শিশু মেশকাত ও নুসরাত। তাদের উদ্ধারের নামে ফায়ার সার্ভিস, নৌ-বাহিনী, বিআইডব্লিউটিএসহ স্থানীয় ডুবুরী দল। প্রায় ছ’ঘন্টার উদ্ধার অভিযানের পর প্রথমে মেশকাত পরে নুসরাতের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয় নদী থেকে। নৌকা ডুবে মৃত্যুর ঘটনা এটিই নতুন নয়। কিন্তু বারবার চেষ্টার পরও প্রভাবশালীদের বাধায় টার্মিনাল থেকে সরানো যাচ্ছে না নৌঘাট। এরই ব্যাখ্যা দিলেন বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে শিশু মেশকাত ও নুসরাতের মতো আরো মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা ছাড়া হয়তো উপায় নেই। জিয়া খান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

১৭ জুলাই, বুধবার ২০১৯

বেলা ১২:০৫ : বাংলা সিনেমা বিকেল ৫:২০ :