তৈলাক্ত তেলের বাজার, পিছলে পড়ছে সাধারণরা

রাজধানীর বাজারে বোতলজাত সয়াবিনের দাম কমার কোন লক্ষণ নেই। উল্টো আরো বৃদ্ধির আভাস দিয়েছেন পাইকারী ব্যবসায়ীরা। বোতলজাত তেলের বাড়তি এই দামকে স্মরণকালের সবচেয়ে বেশি বলে মনে করছেন পাইকাররা। তবে কিছুটা কমেছে খোলা তেলের দাম।

ভোজ্য তেলের তেলেসমাতি

অস্থিরতা কাটছেই না বোতলজাত ভোজ্য তেলের বাজারে। চলতি বাজেটে ভোজ্যতেল আমদানিতে শুল্ক বৃদ্ধির পর কয়েক দফায় পণ্যটির দাম বেড়েছিল। তারপর কিছুদিন স্থিতি থেকে আবার বাড়তে শুরু করে ভোজ্যতেলের দাম। গত ডিসেম্বর মাসে মণপ্রতি ১৫০-২০০ টাকা বেড়েছিলো ভোজ্যতেলের দাম। বর্তমানে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে এসে পাঁচ লিটারের বোতল প্রতি দাম বেড়েছে একশ’ টাকারও বেশি করে। তেলের এই বাড়তি দাম নিয়ে ক্ষুব্ধ ভোক্তারা। অসহায় পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীরাও।

বোতলজাত তেলের দাম কমার সম্ভাবনা নিয়ে পরিস্কার কোন ধারণা নেই কারো কাছে। বাংলাদেশ পাইকারী ভোজ্যতেল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো: গোলাম মাওলাও পরিস্কার করতে পারলেন না বিষয়টি।

তবে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে খোলা সয়াবিন ও পাম তেলের বাজারে। গত কয়েকদিনের ব্যবধানে লিটার প্রতি কমেছে পাঁচ টাকা। দুই একদিনের মধ্যে দাম আরো কমবে বলে জানিয়েছেন পাইকার মালিক সমিতি।

তেলের বাজারের অস্থিরতা কাটানোর উপায় বের করতে দু’একদিনের মধ্যে সভায় বসতে যাচ্ছে বাণিজ্যমন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট অন্য প্রতিষ্ঠনাগুলো।

You may also like

কুষ্টিয়ায় ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত; রাজশাহী থেকে খুলনার ট্রেন চলাচল বন্ধ

মালবাহী ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়েছে কুষ্টিয়ায়। এতে বন্ধ