কুয়াকাটায় স্কুলছাত্রীকে হত্যার পর লাশ গুম

কুয়াকাটায় নবম শ্রেণির এক ছাত্রী মরিয়মকে হত্যার পর লাশ গুম করা হয়েছে বলে সন্দেহ এলাকাবাসীর। ঐ স্কুল ছাত্রীর শোবার ঘরে রক্ত মাখা দু’টি ছুরি, তার ব্যবহৃত পায়ের নুপূর এবং দুই টুকরো মাংস ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যায়নি। কোন হদিস ও বের করতে পারেননি কেউ। ঘরের বেড়াসহ বিভিন্ন স্থানে রক্তের চিহ্ন থাকলেও আসলে কী ঘটেছে তা ও জানাতে পারেননি স্বজনরা।

কুয়াকাটা খানাবাদ কলেজ এলাকায় একটি বাড়িতে লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডের এই ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ স্বজনদের। স্বজনরা জানায়, মঙ্গলবার রাতের খাবার খেয়ে মা নূরজাহান দুই শিশু সন্তান ও নবম শ্রেণির ছাত্রী মেয়ে মরিয়মকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। আর ঐ ঘরের দোতলায় ঘুমাচ্ছিল নূরজাহানের বড় মেয়ে রেশমা ও তার স্বামী মাঈনুল।

গভীর রাতে বোন মরিয়মের সাথে কথা হয় রেশমার। কিন্তু সকালে উঠে আর পাওয়া যায়নি মরিয়মকে। ঘরের বিভিন্ন জায়গায় রক্ত দেখে মা নূরজাহান বেগমের আর্ত চিৎকারে সবার ঘুম ভাঙ্গে।

পুলিশ বলছে হত্যাকাণ্ডের পর লাশ গুম করে ফেলা হতে পারে। মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুবুর রহমান জানান, ঘটনাস্থল ঘুরে দেখেছেন তারা। রহস্যজনক এই হত্যার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি স্বজন ও এলাকাবাসীর।

 

You may also like

বাঁধাকপি বিদেশে রফতানি, খুশি চাষীরা

বাংলাদেশের বাঁধাকপি এখন বিদেশে রফতানি হচ্ছে। এরই মধ্যে