বেগমগঞ্জের পুনরাবৃত্তি হাতিয়ায়…

এবার নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। মামলায় আরো অভিযোগ করা হয়েছে, ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে ঘরে ঢুকে নির্যাতিতাকে বিবস্ত্র করে ধারণ করা ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় সন্ত্রাসী জিয়া ওরফে জিহাদ, ভুট্টু মাঝিসহ ফারুক বাহিনীর সদস্যরা। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে শনিবার।

নারী নির্যাতনের প্রতীকী ছবি

ভুক্তভোগীরা জানান, বছরের শুরুতেই, গত ১ জানুয়ারি রাতে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা সন্তানদের সামনে ওই গৃহবধূকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে বিবস্ত্র করে ভিডিও চিত্র ধারণ করে। নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূ গত ৫ জানুয়ারি জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ মামলাটি দায়ের করেন। বিচারক বাদীর অভিযোগ আমলে নিয়ে হাতিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।

হাতিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম ফারুক জানান, আদালতের নির্দেশনার প্রেক্ষিতে গত শনিবার তিনি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। মামলার আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

নির্যাতনকারী ও নির্যাতনের শিকার

মামলার এজাহারে ওই গৃহবধূ অভিযোগ করেছেন, গত ১ জানুয়ারি স্বামীর অনুপস্থিতিতে স্থানীয় জিয়া ওরফে জিহাদ, ফারুক, এনায়েত, ভুট্টু মাঝি ও ফারুক বাহিনীর সদস্যরা ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। তাতে ব্যর্থ হয়ে সন্ত্রাসীরা তাকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন চালায় এবং মোবাইল ফোনে সেই ভিডিও চিত্র ধারণ করে। এসময় তিনি ও তার ছেলে-মেয়েদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন জড়ো হতে থাকলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে তার স্বামী এসে তাকে উদ্ধার করে এবং ঘটনার পরদিন ২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতালে দু’দিন চিকিৎসা নিয়ে আদালতে গিয়ে মামলা করেন ওই গৃহবধূ।

এর আগে, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে অপর এক গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয় বখাটেরা। এই ঘটনায় দেশব্যাপী ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। দেশজুড়ে প্রতিবাদের মধ্যে সরকার ধর্ষণের সাজা বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ডের বিধান করে।

You may also like

জিয়াউর রহমানের অবস্থান স্বাধীনতাযুদ্ধের ইতিহাসের ক্ষুদ্র জায়গায় : কৃষিমন্ত্রী

পাকিস্তানের এ দেশীয় দোসর ও তাঁবেদাররা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা