ধর্ষণের শিকারদের চরিত্র হনন ও ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ে বন্ধের দাবি

আসামিদের দ্রুত জামিন, সাক্ষীর অভাব, মামলা সংশ্লিষ্টদের অসহযোগিতা, ভয় প্রদর্শন এবং যথাযথভাবে মেডিকেল পরীক্ষা না হওয়ায় ধর্ষণ মামলার বিচার দ্রুত শেষ হচ্ছে না বলে মনে করেন আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মীরা। ধর্ষণ মামলা পরিচালনায় বিচারক স্বল্পতা রয়েছে বলেও মনে করছেন তারা।

বৃহস্পতিবার সকালে এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ধর্ষণের শিকারদের চরিত্র হনন ও ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ে বন্ধেরও দাবি জানিয়েছেন আলোচকরা।

২০১২ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ৫ বছরের ২৫টি ধর্ষণ মামলার পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন। ৬ মাসের মধ্যে মামলার কার্যক্রম শেষ করার কথা থাকলেও মামলা পরিচালনায় তদন্ত কর্মকর্তা ও আইনজীবীদের অসহযোগিতা, ভিকটিমকে ভয় প্রদর্শনসহ নানা কারণে বিচার কাজ শেষ করতে দেরি হচ্ছে উল্লেখ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

মানবাধিকার ব্যক্তিত্ব এলিনা খান ধর্ষণ মামলার বিচার না হওয়ার নানা কারণ তুলে ধরেন, ধর্ষণকারীর সঙ্গে বিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি। আর ধর্ষণের শিকার নারীর চরিত্র হনন বন্ধের কথা বলেন মানুষের জন্য ফাউন্ডশনের কর্মকর্তা শাহীন আনাম।

এই ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে রাজধানীর কলাবাগানে ও লেভেল শিক্ষার্থী ধর্ষন ও হত্যায় বিচারের দাবিও জানিয়েছেন আলোচকরা।

You may also like

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী শাম্মী আক্তারের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ

গানের আকাশের উজ্জ্বল নক্ষত্র শাম্মী আক্তার, বছর দুই