যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছে দেশটির আপিল বিভাগ

যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছে দেশটির আপিল বিভাগ

সাত মুসলিম দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছে দেশটির আপিল বিভাগ। রায়কে রাজনৈতিক উল্লেখ করে আবারো আইনী লড়াই চালানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এদিকে, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে ফোনালাপে এক চীন নীতিতে সমর্থনে রাজি হয়েছেন ট্রাম্প। অন্যদিকে, রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে হওয়া পরমাণু হ্রাসকরণ চুক্তিটি ট্রাম্প নবায়ন করবেন না বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বিশেষ প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। ফেডারেল আদালতে আবারও হোঁচট খেলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মুসলিমপ্রধান সাত দেশের বৈধ ভিসার যাত্রীদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে দেয়া নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালে ট্রাম্প প্রশাসনের আবেদন খারিজ করেছে আপিল বিভাগ। স্যান ফ্রান্সিসকোর নাইন্থ সার্কিট আপিল কোর্টের তিন বিচারক বৃহস্পতিবার এ রায় দেন। রায়ে বলা হয়, সাত দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে দিলে নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি হতে পারে-এমন আশঙ্কার পক্ষে প্রমাণ দেখাতে পারেনি রাষ্ট্রপক্ষ।
রায়ের পর তাৎক্ষণিক এক টুইটে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ট্রাম্প। রায়কে রাজনৈতিকও বলেছেন তিনি। নির্বাহী আদেশের কার্যকারিতা পুনর্বহালের জন্য শেষ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টে যাবার ঘোষণাও দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। এদিকে, সমালোচনার পর শেষ পর্যন্ত চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সাথে টেলিফোনে আলাপ করেছেন ট্রাম্প। সেই সাথে এক চীন নীতিতে সমর্থনেও রাজি হয়েছেন। বাণিজ্য নীতি ও দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণার শুরু থেকে চীনের প্রতি বিরুপ ছিলেন ট্রাম্প। পরে তাইওয়ান ইস্যুতে এক চীন নীতি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। তবে এবারে চীন-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের বরফ গলবে বলে আশা করছেন বিশ্লেষকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও

ফ্রান্সে কড়া নিরাপত্তায় চলছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ

ফ্রান্সে কড়া নিরাপত্তায় চলছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম ধাপের