দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে দিশেহারা বস্তিবাসী ও নিম্ন আয়ের মানুষ

দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে দিশেহারা বস্তিবাসী ও নিম্ন আয়ের মানুষ। তারা জানিয়েছেন, দাম বাড়লেও তাদের উপার্জন বাড়েনি। তাই খাবার কিনতেই অতিরিক্ত টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। এতে সঞ্চয় তো দূরে থাক অন্যান্য প্রয়োজনীয় খরচও মেটাতে পারছেন না তারা।

প্রতিদিনই বাড়ছে শাকসবজির দাম। কেন বাড়ছে, তার উত্তর নেই কারও কাছেই। অজুহাত হিসেবে বিক্রেতারা বলেন, বৈরি আবহাওয়া, এখন মৌসুম নয় বা সরবরাহ কম। রাজধানীর বাজারগুলোতে মৌসুমি সবজির ছড়াছড়ি থাকলেও দাম কমার কোন লক্ষনই নেই।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাব মতে, গত বছরের এই সময়ের তুলনায় এবছরের এই সময়ে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে দিগুণ। চালের দাম খুব একটা কমেনি, একই অবস্থা মাছ-মাংসের বাজারেও। আর এই দুর্মূল্যে বাজারে সবচেয়ে বেশি বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষ। এই যেমন মিনারা বেগম, রাজধানীর কারওয়ান বাজারে রেললাইনের পাশের বস্তিতে তিনি যখন চার সদস্যের পরিবারের রান্না করছেন, তখন তাকে আগামীকালের বাজার খরচের জন্য দুঃশ্চিন্তা করতে হচ্ছে। একই রকম পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে দিন যাপন করছেন এখানকার প্রায় সব বাসিন্দাই।

সরকারের হিসেবেই ২০ লাখ মানুষ রাজধানীর বস্তিতে বাস করে, বেসরকারি হিসেবমতে তা দিগুণেরও বেশি। যাদের আয়-উপার্জন, সংসারের টানাপোড়েন বা খরচের হিসাব মোটামুটি একই রকম। খাদ্যের পেছনে অতিরিক্ত খরচের পর আসে ঘরভাড়া, আর তা মেটানোর পর অন্য প্রয়োজনীয় খরচের কোন সুযোগই থাকছে না তাদের।

সরকার বারবার বলছে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা কমিয়ে আনার পরিকল্পনার কথা। নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে না আনতে পারলে এই পরিকল্পনা কতটুকু বাস্তবায়ন হবে- সে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

You may also like

ক্ষমতায় এলে বিমানবাহিনীসহ প্রতিটি বাহিনীর প্রয়োজনীয় আধুনিকায়ন করার আশ্বাস

আবারো ক্ষমতায় এলে বিমানবাহিনীসহ প্রতিটি বাহিনীর প্রয়োজনীয় আধুনিকায়ন