কুড়িগ্রামে ভুয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে কোটি টাকা লোপাট

কুড়িগ্রামে আনন্দ স্কুলের অস্তিত্ব না থাকলেও বিদ্যালয়ের নামে উপবৃত্তি, উপকরণ ও ঘরভাড়াসহ বরাদ্দের কোটি টাকা লোপাট। কোথাও ঘর নেই, কোথাও ঘর থাকলেও সেগুলো পরিত্যক্ত। তবে খাতা-কলমে স্কুল সচল দেখিয়ে বরাদ্দের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, শিক্ষকদের বিরুদ্ধে।

হতদরিদ্র ও ঝড়ে পড়া শিশুদের স্কুলমুখী করতে সরকার ‘রিচিং আউট অব স্কুল চিলড্রেন’ (রস্ক) প্রকল্প-২ আওতায় ২০১৪ সালে পাঁচ বছরের জন্য জেলার দু’টি উপজেলায় একশ’ ৪৩টি আনন্দ স্কুলের কার্যক্রম শুরু হয়। এরমধ্যে নাগেশ্বরীতে ৯টি ইউনিয়নে ৭৪টি স্কুলে শিক্ষার্থী ১৪৮৩জন এবং রৌমারীতে ৬টি ইউনিয়নে ৬৯টি স্কুল ১৩০০জন শিক্ষার্থী রয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায় অধিকাংশ স্কুলের অস্তিত্ব নেই তবুও এসব স্কুলে নিয়মিত শিৰার্থী দেখিয়ে উপবৃত্তিসহ উপকরণের টাকা প্রদান করা হয়ে আসছে। এই স্কুল দেখভালের জন্য উপজেলায় একজন করে ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর রয়েছে। প্রতিবছর শিৰার্থীদের পোশাকের জন্য ৫শ টাকা, পরীৰার ৪শ টাকা এবং ঘর মেরামতের জন্য ৪শ টাকা বরাদ্দ থাকলেও স্কুল প্রতিষ্ঠার পর একবার দেয়া হয়।

এছাড়াও প্রতিমাসে ১ম-৩য় শ্রেণি ২২০ টাকা, ৪র্থ-৫ম শ্রেণির ৩শ টাকা করে উপবৃত্তি থাকলেও অনেক শিৰার্থী দু’একশ টাকা পেয়েছে। আর এই টাকা অধিকাংশ শিক্ষার্থীর কপালে জোটেনি। স্কুলের শিৰকের বেতন মাসে ৩হাজার টাকা এবং স্কুল ঘর ভাড়া ৪শ’ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। শিৰার্থীর টাকা প্রশাসনের নাকের ডগায় লোপাট হলেও নিরব ভূমিকায় প্রশাসন।

এসব স্কুল প্রতিষ্ঠার শুর্বতে নেয়া হয় টাকা। শিৰক নিয়োগও হয় টাকায়। প্রথম দিকে সাইনবোর্ড থাকলেও এখন সেগুলো বিলুপ্তর পথে। আনন্দ স্কুলের পোষাক ও উপবৃত্তির টাকা দেবার খবর শুনে স’ানীয় সাংবাদিকরা গেলে তাদেরকে ম্যানেজ করার চেষ্ঠা করেন সংশিৱষ্টরা। প্রতিষ্ঠান গুলোর বির্বদ্ধে অভিযোগ রয়েছে অফিসার এলেই ভাড়া করা শিৰার্থী নিয়ে এসে প্রতিষ্ঠান চালু দেখানো হয়।
এই শিৰকও স্বীকার করলেন আনন্দ স্কুলের টাকা নিয়ে অনিয়মের কথা।

এই ব্যাংক কর্মকর্তাও জানালেন ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর এবংস্কুলের শিৰকদের কুট কৌশলের কথা। তিনি শিৰার্থী উপসি’ত না পেয়েই টাকা নিয়ে চলে আসেন। টাকা ভাগবাটোয়ারার বিষয়টি অস্বীকার করে ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর দোষ চাপালেন ব্যাংক কর্মকর্তার উপর। তবে তিনিও স্বীকার করেন রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে স্কুল না থাকলেও সেগুলো চালু দেখানো হয়েছে। আনন্দ স্কুলের অনিয়মের বিষয়টি তার জানা তবুও তিনি জানালেন সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস’া নেবেন তিনি।

You may also like

রোনালদোর লাল কার্ডের দিনেও জিতল জুভেন্টাস

জুভেন্টাসের হয়ে অভিষেকেই লাল কার্ড দেখলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।