রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রমে আতঙ্কিত কক্সবাজারবাসী

কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের কারনে ভয়াবহ ক্ষতির সম্মুখীন স্থানীয় জনগোষ্ঠী। ব্যাপক হারে কমেছে ফসলের জমি ও গবাদি পশুর চারনভুমি। রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের কারণে প্রানহানির শঙ্কায়ও থাকতে হয় স্থানীয় মানুষের। রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে আরিফুল হকের রিপোর্ট। ছবি তুলেছেন কামরুল হাসান। কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালংয়ে ব্যাপক হারে রোহিঙ্গা বসতির কারনে সীমিত হয়ে এসেছে স্থানীয় বাঙালিদের বাসস্থান। আগে যেখানে স্থানীয়দের ফসলের জমি ছিলো বা যেসব স্থানে গবাদি পশু চরাতেন তারা, সেসব জমি এখন রোহিঙ্গাদের দখলে। আবার পাহাড়ি এসব অঞ্চলে সরকার সামাজিক বনায়নেও অংশগ্রহন থাকতো স্থানীয়দের।

রোহিঙ্গারা সবকিছু সাবাড় করে দেয়ায়, সীমিত হয়ে এসেছে তাদের জীবিকাও। স্থানীয়রা জানান, মানবিক কারনে রোহিঙ্গাদের জায়গা করে দিয়েছেন তারা। এর প্রতিদানে তাদের পড়তে হয়েছে মহা সংকটে। ক্যাম্প ছেড়ে রোহিঙ্গারা অবাধে ঢুকে পড়ছে লোকালয়ে। দিনের বেলা কেউ বর্গা খাটছে, রাতেও বের হয়ে জড়িয়ে পড়ছে চুরি ডাকাতিসহ নানা অপরাধে। এতে আতঙ্কিত স্থানীয়রা। অভিযোগের প্রমানও মিললো। উখিয়ার মধুরছড়া এলাকায় দেখা মিললো কয়েকজন রোহিঙ্গার। এখানে চেকপোস্ট না থাকায় তারা অবাধে অন্য অঞ্চলে গিয়ে কাজ শেষে ক্যাম্পে ফিরছিলো। নিজেদের জানমালের নিরাপত্তার পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের দ্রুত দেশে ফেরত পাঠানোর দাবি স্থানীয় বাঙালিদের।

 

You may also like

১৮ সেপ্টেম্বর, বুধবার ২০১৯

বেলা ১২:০৫ : বাংলা সিনেমা বিকেল ৫:২০ :