বেড়েছে ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে সাইবার অপরাধ

করোনাকালে বেড়েছে প্রযুক্তির ব্যবহার, বেড়েছে ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে সাইবার অপরাধও। তথ্য প্রযুক্তিবিদরা বলছেন, হয়রানী এড়াতে মোবাইল-ল্যাপটপসহ পুরাতন ডিভাইস বিক্রি করার সময় “ডি ফরেনসিক সফটওয়্যার” দিয়ে মাস্টার ফ্ল্যাশ করা উচিৎ। এছাড়া কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরী করে ফেসবুক ব্যবহার করতে হবে। আইন-শৃংখলা বাহিনী জানিয়েছে, কেউ সাইবার অপরাধের স্বীকার হলে থানায় জিডি করে পরবর্তী আইনী সহায়তা নিতে হবে।

একটি ইন্সুরেন্স কোম্পানীর কর্মকর্তা ওয়াহিদ মজুমদার। কিছুদিন আগে তার ফেসবুক আইডি দখলে নেয় হ্যাকাররা। ফেসবুক বন্ধুদের কাছে চাওয়া হয় আর্থিক সহায়তা। শিক্ষার্থী মোকাররম হোসাইনের ঘটনা আরো ভয়াবহ। তার আইডি হ্যাক করে ফ্রেন্ডলিস্টে থাকা মেয়ে বন্ধুদের বিরক্ত করার চেষ্টা করে হ্যাকাররা।

সম্প্রতি কক্সবাজারে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যার পর একটি মহল শীপ্রার ব্যক্তিগত কিছু ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হয়, যা সাইবার অপরাধের শামিল। এক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তিবিদরা বলছেন, ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সাথে রাষ্ট্রীয় সম্পর্ক থাকা দরকার যা এখনো অস্পষ্ট। ডিজিটাল অপরাধীদের ধরতে না পারলে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন ধুলিস্যাৎ হয়ে যাবে। সাইবার অপরাধের শিকার বেশিরভাগই নারী। ঘটনা লুকিয়ে রেখে অপরাধীদের হাত থেকে বাঁচতে চায় তারা। অপতৎপরতা ঠেকাতে সাইবার অপরাধীরা নজরদারীতে রয়েছে বলেও দাবি আইন-শৃংখলা বাহিনীর।

দিপন দেওয়ান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

ক্ষমতা প্রলম্বিত করতে জঘন্য খেলায় মেতেছে আ. লীগ : ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অভিযোগ, আওয়ামী