ধর্ষণে কেবল নারী নয়, কলঙ্কিত হয় গোটা সমাজ

করোনার ধকলের মাঝেও দেশে ধর্ষণ-গণধর্ষণের ভয়াবহতা। গড়ে দেশে এখন প্রতিদিন ধর্ষিত হচ্ছে তিনজনের বেশি নারী। ধরপাকড় সম্প্রতি দ্রুত হলেও বিচারের গতি আগের মতোই। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পর্যবেক্ষণ হচ্ছে- নিম্ন আদালতে রায় হলেও উচ্চ আদালতে আটকে থাকছে ধর্ষণ মামলাগুলো। রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি জানান, ধর্ষণ মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য নিম্ন আদালতে আলাদা ট্রাইব্যুনাল গঠনের বিষয়ে একটি রুল আটকে আছে। উচ্চ আদালতে বিশেষ বেঞ্চ করে ধর্ষণ মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি সম্ভব বলে মত তার।

ধর্ষণ, ঘৃণ্য অপরাধ। এর শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। অথচ বাংলাদেশে এই ঘৃণ্য অপরাধটি সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। ধর্ষণে কেবল একজন নারী নয়, কলঙ্কিত হয় গোটা সমাজ। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের তথ্য বলছে, গত ৯ মাসে দেশে ধর্ষণের শিকার ৯৭৫ নারী। এর মধ্যে গণধর্ষণের ঘটনা ২০৮ টি। এছাড়া ধর্ষণের পর হত্যার শিকার হয়েছেন ৪৩ জন নারী। আর আত্মহত্যা করেছেন ১২ জন নারী।

গত ৯ মাসে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন ১৬১ নারী। যৌন হয়রানরি অপমান সইতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন ১২ নারী। আর যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করতে গিয়ে ৩ নারী এবং ৯ পুরুষ নিহত হয়েছেন। ধর্ষণের বিচারের গোটা প্রক্রিয়াটিই জটিল। পথে পথে হয়রানি, ভয়-ভীতির জেরে অনেক নারীকে হাল ছেড়ে দিতে হয়। ধর্ষণ মামলাগুলোর দ্রুত নিষ্পত্তিতে বিচারকের সংখ্যা বাড়ানোর পরামর্শও বিশ্লেষকদের।

দিপন দেওয়ান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

ক্ষমতা প্রলম্বিত করতে জঘন্য খেলায় মেতেছে আ. লীগ : ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অভিযোগ, আওয়ামী