প্রত্যাশিত সেবা দিতে পারছে না চট্টগ্রাম বন্দর

প্রবৃদ্ধির সমান তালে অবকাঠামো উন্নয়ন না করায় চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য হ্যান্ডলিংয়ে তৈরি হচ্ছে নানা সমস্যা। সময় মতো জাহাজ জেটিতে নোঙ্গর করতে না পারায় পণ্য খালাসে বিলম্ব হচ্ছে। পরিকল্পনায় পিছিয়ে থাকার কারণে বন্দর সক্ষমতা হারাচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

দেশের আমদানি–রপ্তানির ৭৫ শতাংশ হয় চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে এই বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি হয়েছে ৭ কোটি ৭২ লাখ মেট্রিক টন মালামাল। এ বছর হ্যান্ডলিং বেড়েছে এক কোটি ৬ লাখ টন। ফলে চট্টগ্রাম বন্দরের গড় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ১২ থেকে ১৩ শতাংশ। অথচ গত এক দশকে একটিও নতুন টারমিনাল গড়ে না ওঠায় তৈরি হচ্ছে নানা সমস্যা।

সম্প্রতি সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কয়েকটি প্রতিষ্ঠানও ২৪ ঘন্টা বন্দর খোলা রাখার ঘোষণা দেয়ায় পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। কিন্তু শিপিং এজেন্ট, ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার, কোয়ারেন্টাইন বিভাগ ৭দিন ২৪ ঘন্টা কাজ না করায় এর পুরোপুরি সুবিধা পাচ্ছেন না ব্যবসায়ীরা। আমদানি বাড়ায় কিছুটা সমস্যা হচ্ছে স্বীকার করেছে বন্দর কতৃপক্ষ। প্রবৃদ্ধির সাথে সামঞ্জস্য রেখে কাঙ্খিত উন্নয়ন না হলে চট্টগ্রাম বন্দর আরো পিছিয়ে পড়তে পারে বলে শঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

You may also like

ইউএস বাংলার একটি ফ্লাইট যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে জরুরী অবতরণ

কক্সবাজার থেকে ঢাকা না এসে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরেই জরুরি