টাকার অভাবে থেমে আছে পাটের পরিবেশবান্ধব প্লাস্টিক ব্যাগ উৎপাদন

মাত্র দুই কোটি টাকার অভাবে থেমে আছে পাট থেকে তৈরি পরিবেশবান্ধব প্লাস্টিক ব্যাগের উৎপাদন। হতাশার সঙ্গে এ কথা জানিয়েছেন দীর্ঘ প্রত্যাশিত এ পদ্ধতির আবিষ্কারক বিজ্ঞানী ডক্টর মুবারক আহমেদ খান। তিনি জানান, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবার পরেও কেবল সরকারি অর্থায়নের অভাবে থমকে আছে সোনালী ব্যাগের উৎপাদন। জুতা সেলাই থেকে চন্ডি পাঠ – আধুনিক জীবনের কোথায় নেই প্লাস্টিক? এলিফ্যান্ট রোডের গৃহস্থি আমরিতুন্নাহার হক রিনা বাজার করতে এসে দোকানদারের দেয়া পলিথিনেই পণ্য নিচ্ছেন। তবে তিনি জানেন, প্লাস্টিক পরিবেশ ও মানুষ কারুর জন্যই শুভ নয়। দিনে দিনে প্লাস্টিকের প্রসারে নিষ্প্রাণ হচ্ছে পৃথিবী। প্রতি বছর পৃথিবীতে নানা প্রয়োজনে তৈরি হয় দশ বিলিয়ন টন প্লাস্টিক। ব্যবহার শেষে তার বেশিরভাগই জমা হয় সাগরে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভাসমান প্লাস্টিক ও আবর্জনা প্লাস্টিকময় করে দিচ্ছে সমুদ্রের পানির কণাগুলোকেও। মাছের শরীর হয়ে তা চলে আসছে মানবদেহে। যা শরীরের জন্য টাইম বোমার মত টিকটিক করছে প্রতিক্ষণে। মানবদেহে সৃষ্টি করছে ক্যান্সারসহ নানা রোগ। বাংলাদেশে পলিথিন নিষিদ্ধ করে আইন হয়েছে বহু আগেই। কিন্তু তা মানা কি সম্ভব হচ্ছে? গোটা পৃথিবীকে আশার আলো দেখিয়েছিলেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী মোবারক আহমেদ খান নেতৃত্বে একদল বিজ্ঞানী। পাট থেকে সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব প্লাস্টিক ও পলি তৈরি করে তাক লাগানো এই বিজ্ঞানীর দাবি, পৃথিবীতে একমাত্র বাংলাদেশে তৈরি পরিবেশবান্ধব প্লাস্টিকই সম্পূর্ণভাবে বায়োডিগ্রেডেবল।

বাজারে প্রচলিত বায়োডিগ্রেডেবল পলিথিন কেবল ২০ শতাংশ কার্যকর। ১৮ ডিসেম্বর ইইউ পার্লামেন্টে সব রকম সিঙ্গেল ইউজ প্লাস্টিক ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে পুরো ইউরোপে ১ জানুয়ারি থেকে। এতটুকুও প্লাস্টিক ব্যবহার না করে তৈরি হয়েছে সোনালী ব্যাগ। পানি বা মাটিতে সুবিধামত সময়ে মিশিয়ে দেয়া যায়। এটাই পৃথিবীতে প্রথম।  লতিফ বাউয়ানি জুট মিলে পাইলট প্রকল্পে দিনে দুই হাজার ব্যাগ তৈরির সক্ষমতা এখন আছে। কিন্তু সোনালী ব্যাগখ্যাত এই পরিবেশবান্ধব প্লাস্টিকের অগ্রযাত্রা শুরুতেই হুমকির মুখে পড়েছে। বিজ্ঞানী মোবারাক আহমেদ খান জানাচ্ছেন, সরকারি সিদ্ধান্ত হবার পরেও কেবল অর্থছাড় না হওয়ায় থেমে আছে সোনালী ব্যাগের যাত্রা। সরকার পরিবর্তনের পরে আমরা থেকে গেছি।এটা আমার দায়িত্ব নয় এটা প্রসার ঘটানো।

সরকারের দায়িত্ব। টাকা পেলেই আমরা বড় আকারে উৎপাদন করতে পারবো। মাত্র দুই কোটি টাকা পেলেও বাজারে এক লাখ ব্যাগ বাজারে দিতে পারবো। দেশে বিদেশে এত ডিমান্ড! বিদেশের অনেক অফার পাচ্ছি। অনেকে বিনিয়োগ করতে চাচ্ছে। কিন্তু এ বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত এখনো না হওয়ায় এগুনো যাচ্ছে না।প্রাথমিকভাবে খরচ একটু বেশি হলেও পরে তা কমে আসবে। তা বাজারের পলিব্যাগের তুলনায়ও কমে আসবে। কিন্তু পরিবেশ রক্ষা কথা বিবেচনায় নিলে এটা সুলভ মূল্যের। ঢাকার দুই মেয়র ড্রেন পরিষ্কার করার জন্য প্রতি বছর যে টাকা খরচ করে তা পেলেও ব্যাগগুলো ফ্রি দেয়া যাবে। টাকাটাই এখন সমস্যা। কাগজে কলমে অর্থ বরাদ্দের সিদ্ধান্ত হলেও টাকা ছাড় হয়নি। বিজ্ঞানীর দাবি, ঢাকার জলাদ্ধতার প্রধানতম কারণ পলিব্যাগ পরিষ্কার করতে এক বছরে দুই সিটি কর্পোরেশন যা খরচ করা তা দিয়েই বিনা মূল্যে বিতরণ করা যেতো পরিবেশ অনুকুল পলিথিন ব্যাগ।

 

You may also like

সড়ক দুর্ঘটনায় মাদারীপুর ও সাতক্ষীরায় তিনজন নিহত

সড়ক দুর্ঘটনায় মাদারীপুর ও সাতক্ষীরায় তিনজন নিহত হয়েছেন।