ধনী-গরীব বৈষম্য আরো বাড়বে, শঙ্কা সিপিডির

অর্থনৈতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডি মনে করে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে স্বচ্ছল ও উচ্চ আয়ের মানুষকে অনেক সুবিধা দিলেও নিম্ন ও মধ্যবিত্ত মানুষের জন্য কোন সুখবর নেই। প্রস্তাবিত বাজেট বৈষম্য বাড়াবে উল্লেখ করে সিপিডি দাবি করেছে, জনকল্যাণের যেসব প্রতিশ্রুতি বাজেটে আছে তার অধিকাংশই বায়বীয়। একই সঙ্গে ঢালাওভাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়ার সমালোচনাও করেছে সিপিডি। দীর্ঘদিন থেকেই সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ – সিপিডি জাতীয় বাজেট সংসদে উত্থাপনের পরদিন সকালেই বাজেটের ভালোমন্দ বিশ্লেষণ করে আসছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট সম্পর্কে সিপিডির মোটা দাগের বিশ্লেষণ হলো, এটা বৈষম্য বাড়িয়ে দেবে। উন্নয়ন বাজেটে পরিবহন, জ্বালানি, পানি ব্যবস্থাপনার মত পাঁচটি খাতেই গেছে মোট বরাদ্দের সত্তুর শতাংশ।

অন্যদিকে, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ গতবছরের তুলনায় কমেছে। সিপিডির প্রশ্ন, পরিবহন অবকাঠামো খাতের চেয়ে মানব উন্নয়ন কম গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে কিভাবে? ধানের দাম নিয়ে বেহাল কৃষি খাতেই বা এত নগণ্য বরাদ্দ কেন? বাজেট প্রকাশনায় সরকারি বিভিন্ন সংস্থার দেয়া তথ্যের মধ্যে গড়মিল তুলে ধরেন সিপিডির গবেষকরা। বলেন, প্রস্তাবিত বাজেট সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারের পরিপূরক নয়। সেখানে অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনার চ্যালেঞ্জগুলোকে আমলে নেয়া হয়নি। অঘোষিত আয় ও বেআইনী আয়ের মধ্যে পার্থক্য তৈরি না করে ঢালাওভাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া দেশের সংবিধানের পরিপন্থী বলেও মন্তব্য করে সিপিডি।

 

You may also like

১৭ জুলাই, বুধবার ২০১৯

বেলা ১২:০৫ : বাংলা সিনেমা বিকেল ৫:২০ :