প্রস্তত করা হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৭ লাখ গবাদিপশু

রাজশাহীতে মোটাতাজা করা পশু দিয়েই মিটবে এবারের কোরবানীর চাহিদা। প্রস্তত করা হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৭ লাখ গবাদিপশু। দাম নিয়ে খামারী ও ক্রেতাদের রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। এদিকে, জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর কিছু ব্যবহার না করে খৈল-ভুষি নির্ভর সনাতন পদ্ধতিতে গরু মোটাতাজা করেছেন গোপালগঞ্জের খামারীরা। কোরবানীর জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে ৩২ হাজার গরু । ভালো দাম পাওয়ার আশা তাদের। এবারের কোরবানীর ঈদে রাজশাহী বিভাগে মোটাতাজা করা হয়েছে ৭ লাখ ৫৪ হাজার পশু। আকার ভেদে এসব পশু বিক্রি হচ্ছে ৭০ হাজার থেকে পাঁচ লাখ টাকায়। তবে, বিক্রেতারা দাম নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও ক্রেতারা বলছে ভিন্ন কথা।

চাহিদা মেটাতে বাইরের গরুর প্রয়োজন হবে না বলে দাবি খামারীদের। প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তর বলছে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়েও দেশের বিভিন্ন জায়গায় যাবে রাজশাহীর গরু। এদিকে, গোপালগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় চার হাজার ২৪ টি খামারে কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে চলছে গরুর শেষ মুহুর্তের যত্ন । এবছর কোরবানীর জন্য ৩২ হাজার পাঁচশ’ ৫২টি গরু প্রস্তুত করেছেন তারা। শেষ পর্যন্ত ভারত থেকে গরু না এলে ভাল লাভের আশা খামারীদের। হাটে উঠতে প্রস্তুত মোটাতাজা করা পশুগুলো। এরই মধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গায় জমে উঠতে শুরু করেছে কোরবানীর পশুর হাট।

 

You may also like

১৭ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার ২০১৯

বেলা ১২:০৫ : বাংলা সিনেমা বিকেল ৫:০০ :