পাঁচ বছরের মধ্যে সর্বনিম্নে ঢাকা স্টকএক্সেঞ্জের সূচক

বিনিয়োগকারীদের হতাশা বাড়িয়ে দ্রুত দর হারাচ্ছে শেয়ার। কেবল চলতি মাসেই ডিএসই প্রধান সূচক হারিয়েছে চারশ পয়েন্ট। সূচক এখন নেমেছে ৫৬ মাসের মধ্যে সর্বনিম্নে। সর্বশান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাজার ছাড়ছেন বহু বিনিয়োগকারী। বিশ্লেষকদের পরামর্শ, অর্থনীতির স্বার্থে এবার অন্তত কার্যকর ভূমিকা নেক সরকার। এদিকে, দর পতনের প্রতিবাদে বুধবারও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ করেছেন বিনিয়োগকারীরা।

২০১০ সালের ধসের পর দীর্ঘ ১০ বছরেও স্থিতিশীল হয়নি শেয়ারবাজার। তাই বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাশাগুলো হতাশার মধ্যেই আটকে গেছে। বাজার ভালো হবে- এমন আশায় বিনিয়োগ বাড়িয়ে কেবলই নিঃস্ব হয়েছেন অনেকে। আর নিয়মিত বিরতিতে সূচক হারাতে হারাতে ডিএসইর প্রধান সূচক এখন চার হাজারের ঘরে।  চলমান পরিস্থিতিতে বিনিয়োগকারীদের সব অভিযোগের তীর যেন পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির চেয়ারম্যান ও অর্থমন্ত্রীর দিকেই।  বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, শেয়ারবাজারের প্রয়োজনীতা সরকার এখনো অনুধাব না করলে, অর্থনীতির জন্য চরম ক্ষতিকর হবে।  ঋণ দিয়ে খেলাপি না করে, তুলনামূলকভাবে ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগ শেয়ারবাজারে নিরাপদ বলছেন, পুঁজিবাজারের এই বিশ্লেষক। এদিকে, অব্যাহত দর পতনের প্রতিবাদে ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ করেছ বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ।

You may also like

রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় ত্রাণের অপেক্ষায় রয়েছে হতদরিদ্ররা

রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় ত্রাণের অপেক্ষায় রয়েছে হতদরিদ্ররা। রাস্তায়