বুয়েটে ছাত্র-শিক্ষক রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়-বুয়েটে রাজনীতি নিষিদ্ধের পাশাপাশি আবরার ফাহাদ হত্যার এজাহারভুক্ত ১৯ আসামিকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শিক্ষককরাও কোনো রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হতে পারবেন না। অবিলম্বে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর সাইফুল ইসলাম। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বুয়েট উপাচার্য এ ঘোষণা দেন। আবরারের নৃশংস হত্যার বিচার দ্রুত শেষ করতে সরকারকে চিঠি দেয়ার পাশাপাশি তার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়া এবং মামলার খরচ বহনেরও আগ্রহ প্রকাশ করেছে বুয়েট প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের শিক্ষার্থীর এ দীর্ঘ লাইন কোনো পরীক্ষার জন্য নয়। রবিবার নিজ ক্যাম্পাসে নৃশংসভাবে খুন হওয়া বুয়েট ছাত্র আবরারের হত্যার দৃষ্টান্তমূলক সাজা, ক্যাম্পাস থেকে খুনিদের বহিষ্কার এবং ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধসহ ১০ দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সাথে আলোচনায় বসতেই আইডি কার্ড হাতে মিলনায়তনে ঢোকার দৃশ্য এটি।

নিরাপত্তা চৌকি পেরিয়ে পাঁচটার আগেই বুয়েটের মিলনায়তনে পৌঁছেন আন্দোলনকারীরা। মিলনায়তনে জায়গা না হওয়ায় বাইরে বসে পড়েন আরো অনেক শিক্ষার্থী। উপাচার্য ড. সাইফুল ইসলাম সোয়া পাঁচটার দিকে মিলনায়তনে পৌঁছালে শুরু হয় ১০ দফা নিয়ে আলোচনা। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা শেষে বুয়েটে রাগিং বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থাসহ আসামীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের পক্ষে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন উপাচার্য।

এর আগে, ১০ দফা দাবিতে সকাল থেকেই পঞ্চম দিনের ক্ষোভে উত্তাল ছিল বুয়েট। ভিসি আলোচনায় বসার আশ্বাস দিলে সব ভবনে তালা দেয়ার ঘোষণা থেকে সরে আসেন আন্দোলনকারীরা। দাবি আদায়ে ক্যাম্পাসে মিছিল ও পথনাটকসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। গত রবিবার বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরারকে ডেকে নিয়ে হত্যা করে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

 

You may also like

২৩ অক্টোবর, বুধবার ২০১৯

সকাল ৮:৩০ : দিন প্রতিদিন বেলা ১২:০৫ :