গরু মোটা-তাজার কাজে ব্যস্ত যশোর ও বাগেরহাটের খামারিরা

কোরবানির ঈদ টার্গেট করে গরু মোটা-তাজার কাজে ব্যস্ত যশোর ও বাগেরহাটের খামারিরা। গো-খাদ্যের বেশি দাম ও শেষ মুহূর্তে ভারত থেকে গরু আমদানির শঙ্কায় ভালো দাম পাওয়া নিয়ে চিন্তিত তারা। গত তিন বছর ধরে যশোরের সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু আসা বন্ধ। আর তাই কোরবানীতে চাহিদা বেড়েছে দেশি গরু-ছাগলের।

ছোট-বড় প্রায় সাড়ে ১১ হাজার খামারে মোটাতাজা করা হচ্ছে গরু। প্রাকৃতিক খাদ্য দিয়ে গরু-ছাগল মোটা-তাজা করা হচ্ছে বলে দাবি খামারিদের। খামারিরা যাতে ক্ষতিকর কিছু ব্যবহার করতে না পারে তা মনিটরিং করছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ। বাগেরহাটের ৯ উপজেলায় ছোট-বড় মিলিয়ে ৭ হাজারের বেশি পশুর খামার রয়েছে।

এসব খামারে ব্রাহমা, ফ্রিজিয়ান, সিন্দি, শাহিওয়ালসহ বিভিন্ন উন্নত জাতের গরু কোরবানীর জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। দেশি খাবার ছাড়া ক্ষতিকর কোন ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে না বলে জানান খামারিরা। জেলার চাহিদা মিটিয়ে পাশের জেলায়ও বাগেরহাটের পশু যাবে, বলে জানিয়েছে প্রাণি সম্পদ বিভাগ।

You may also like

জাতীয় ঐক্য দেখে আতঙ্কিত আ. লীগ : মোশাররফ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ডক্টর খন্দকার মোশাররফ হোসেন