সর্ববৃহৎ ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া

প্রতিবারের মতো এবারও দেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান। একশ’ ৯২ তম এ ঈদের জামাতে ইমামতি করবেন মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ। প্রতিবছরই কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদের সবচেয়ে বড় জামাত হয়। সকাল ১০ টায় জামাত শুরু হবে। এরই মধ্যে ঈদগাহের মাঠে দাগ কাটা, মিম্বর ও দেয়ালে নতুন রং করা, ওজুখানায় পানি সরবরাহ, মাইকের বৈদ্যুতিক লাইন সংযোগসহ বিভিন্ন কাজ শেষ হয়েছে।

এবার ঈদুল ফিতরের দিন শোলাকিয়ায় ঈদের জামায়াতে অংশগ্রহনে ইচ্ছুক মুসল্লীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে শোলাকিয়া এক্সপ্রেস নামে দু’টি স্পেশাল ট্রেন, ভৈরব থেকে একটি ও ময়মনসিংহ থেকে একটি আসা যাওয়া করবে। দূর দূরান্ত থেকে যেসব মুসল্লী আসবেন, তাদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানালেন জেলা প্রশাসন।

ঈদ জামাতকে নির্বিঘ্ন করতে পাঁচ প্লাটুন বিজিবি, পুলিশের ১২০০ সদস্য ও Rab-এর শতাধিক সদস্য থাকবেন। এছাড়া গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন সাদা পোশাকে নজরদারীতে নিয়োজিত থাকবে। পুরো শোলাকিয়া ঈদগাহ সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকবে। মুসল্লীদের মাঠে ঢোকানো হবে তল্লাশী করে।

মসনদ-ই-আলা ঈশা খাঁর ৬ষ্ঠ বংশধর দেওয়ান মান্নান দাদ খান কিশোরগঞ্জের জমিদারী প্রতিষ্ঠার পর ইংরেজি ১৮২৮ সনে কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পূর্ব প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরে প্রায় ৭ একর জমির ওপর এ ঈদগাহ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রথম জামাতে সোয়া লাখ মুসল্লি অংশ নেন বলে মাঠের নাম হয় “সোয়া লাখি মাঠ”। সেখান থেকে উচ্চারণের বিবর্তনে আজকের শোলাকিয়া মাঠ নাম ধারণ করেছে।

 

You may also like

বাবরি মসজিদ রায়: এবার মুখোমুখি শিয়া-সুন্নিরা

ভারতের অযোধ্যায় গুড়িয়ে দেয়া বাবরি মসজিদের জমিতে রাম