পাহাড়ি ঢলে বিপদসীমা ছুঁয়েছে লালমনিরহাটের ১০টি নদ-নদীর পানি

প্রবল বর্ষণ আর উজান ঢলে বৃদ্ধি পাওয়া সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি কয়েকটি পয়েন্টে কমতে শুরু করেছে। তবে সিলেটের কানাইঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে সুরমার পানি। এদিকে, লালমনিরহাটে তিস্তা ও ধরলাসহ ১০টি ছোট নদীর পানি বিপদসীমা ছুঁইছুঁই করছে।

কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি ও উজানের ঢলে সিলেটের কানাইঘাটে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার বেশ খানিকটা ওপর দিয়ে বইছে। তবে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে কমেছে সুরমা ও কুশিয়ারার পানি। বিপদসীমার নিচে নেমেছে সারিগোয়াইন নদীর পানিও। ফলে সিলেটের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। অন্যদিকে, বৃষ্টিপাত বন্ধ থাকায় উন্নতি হয়েছে সুনাগঞ্জের নিম্নাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির। তলিয়ে যাওয়া রাস্তাঘাট থেকে পানি নেমে গেছে। ফলে সীমান্ত এলাকার অনেক সড়ক ও গ্রামীণ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পাহাড়ি ঢলের তোড়ে।

এদিকে, গাইবান্ধার বিভিন্ন নদ-নদীর পানি ক্রমেই বাড়ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, গত কয়েকদিন ধরে ভারতে ও দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি ও উজানের পানি প্রবেশ করায় তিস্তা, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রসহ সবগুলো নদীতেপানি বেড়েছে। ফলে পানি বৃদ্ধির ফলে সুন্দরগঞ্জ, সাঘাটা, গাইবান্ধ সদর ও ফুলছড়ি উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকার নিন্মাঞ্চলগুলো প্লাবিত হচ্ছে। লালমনিরহাটেও নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে প্লাবিত হয়েছে চর ও নদী তীরবর্তী এলাকা। নলকূপগুলো তলিয়ে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানি ও খাবারের চরম সঙ্কটে দুর্গতরা।

 

You may also like

নিউইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা