বাংলাদেশকে পাঁচশ টেস্টিং কিট দিয়েছে চীন

দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর যারা হজ্জ ক্যাম্প থেকে শর্ত সাপেক্ষে ঘরে ফিরে গেছেন তারা সবাই সুস্থ্য। তবে আরো অন্তত ১০ দিন তাদের সতর্ক থাকার আহবান জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট-আইইডিসিআর। এদিকে, করোনা ভাইরাস শনাক্তে বাংলাদেশকে পাঁচশ টেস্টিং কিট দিয়েছে চীন। চীনের করোনা আক্রান্ত শহর উহান থেকে ফিরে এসে আশকোনার হজ্জ ক্যাম্পে বিশেষ পর্যবেক্ষণে ছিলেন ৩১২ বাংলাদেশী। দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইন শেষে তারা বাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন। এদের সবারই স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর সরকার নিশ্চিত হয়েছে কারো শরীরে করোনার জীবাণু নেই। তারা সম্পূর্ণ সুস্থ্য।  আইডিসিআর বলছে, সুস্থ্য হলেও অন্তত আরো দশ দিন সতর্ক থাকতে হবে এই তিনশো বারো জনকে। জর বা শ্বাসতন্ত্রের কোন সমস্য দেখা দিলেই তারা যেন, কন্ট্রোল রুমে ফোন করেন।

অথবা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর স্থাপিত কাছাকাছি কোন কেন্দ্রে যোগাযোগ করেন।  এদিকে, সকালে চীনের রাষ্ট্রদূত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের হাতে করোনা শনাক্তের কীট তুলে দেন। দুর্দিনে পাশে থাকায় বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন চীনা রাষ্ট্রদূত। তিনি জানান, করোনা ইস্যুতে বাংলাদেশ-চীন বাণিজ্যে কোন ব্যাঘাত পড়বে না।  পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ১৭২ জন শিক্ষার্থী চীনের উহানে আছে। তারা দেশে ফিরতে চায়। যে বিমান প্রথম চীন গিয়েছিল তার ক্রুরা কোথাও যেতে পারছে না বলেই বাকিদের ফিরিয়ে আনা যাচ্ছে না।  পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, সিঙ্গাপুর ছাড়া কোথাও কোন বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত হয়নি। বন্ধুত্বের স্মারক হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাস্কসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকরণ চীনে পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। চীনের প্রেসিডেন্টকে লেখা শেখ হাসিনার চিঠি রাষ্ট্রদূতের হাতে তুলে দেন ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

 

You may also like

জেলায় জেলায় হোম কোয়ারেন্টিনের সংখ্যা বাড়ছে

নোয়াখালীতে সর্দি-কাশি, জ্বর আক্রান্ত হয়ে এক যুবক মারা