ওয়াশিংটনসহ ২৫টি শহরে কারফিউ

কারফিউ জারি আর ন্যাশনাল গার্ড সদস্যদের মোতায়নের পর থমথমে যুক্তরাষ্ট্রের অন্তত ২৫টি শহর। পুলিশি নির্যাতনে এক কৃষ্ণাঙ্গের মৃত্যুর জেরে কমপক্ষে ৩০টি শহরে ছড়িয়েছে সহিংস বিক্ষোভ। ক্ষোভে জ্বলছে মিনেসোটা রাজ্যের মিনিয়াপোলিস। ওই শহরেই পুলিশি নির্যাতনে মারা যান নিরস্ত্র কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লোয়েড। বিক্ষোভে টালমাটাল নিউ ইয়র্কসহ শহরের পর শহর। শনিবার চতুর্থ দিনের মতো বিভিন্ন শহরে সংঘর্ষে জড়ান বিক্ষোভকারীরা। টিয়ারগ্যাস ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। আটক করা হয় শতাধিক বিক্ষোভকারীকে।

বর্ণবাদী এই আচরণে দু:খ প্রকাশ করলেও করোনা মহামারির মধ্যে বিক্ষোভ কর্মসূচির নিন্দা জানিয়েছেন নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাজিও। ওয়াশিংটনসহ ১৬টি রাজ্যের ২৫টি শহরে জারি হয়েছে কারফিউ। মিনিয়াপোলিসসহ বিক্ষুব্ধ শহরগুলোতে মোতায়েন করা হয়েছে ন্যাশনাল গার্ড সদস্যদের। এদিকে, জর্জ ফ্লোয়েডের হত্যার ঘটনায় হোয়াইট হাউজ ঘিরে চলমান বিক্ষোভে বিরক্তি প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে দলীয় সমর্থকদের রাস্তায় নামতে বলেছেন তিনি। হোয়াইট হাউজের সীমানা পার হলে কঠোর পদক্ষেপেরও হুঁশিয়ারি দেন তিনি। এক পুলিশ সদস্যকে হত্যা মামলার আসামি করা হলেও ঘটনায় জড়িত চারজনের বিরুদ্ধে একই পদক্ষেপের দাবি তুলেছেন বিক্ষোভকরীরা।

You may also like

করোনায় বন্ধের ঝুঁকিতে এলাকাভিত্তিক স্কুল ও কোচিং সেন্টার

করোনা ঝাপ্টার মাঝে প্রতিষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো কোনভাবে টিকে