আরমেনিয়া ও আজারবাইজানে তুমুল সংঘর্ষ

বিরোধপূর্ণ নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিতে দুই প্রতিবেশি আরমেনিয়া ও আজারবাইজানের তুমুল সংঘর্ষে অন্তত ২৩ জন নিহত হয়েছে। আজারবাইজানের পক্ষে তুরস্ক ও আরমেনিয়ার পক্ষে রাশিয়া সমর্থন জানিয়েছে। এপরিস্থিতিতে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র। স্থানীয় সময় রবিবার সকালে নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে গোলাবর্ষণে অন্তত ১৬ জন নিহত ও শতাধিক আহত হলে সংঘর্ষে জড়ায় সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে জন্ম নেয়া দু’দেশ। ড্রোন হামলায় আজারবাইজানের ট্যাঙ্ক ধ্বংসের ছবি প্রকাশ করে একাধিক হেলিকপ্টারও ভূপাতিতের দাবি করে আরমেনিয়ার সেনাবাহিনী। বিরোধপূর্ণ ককেশিয়া অঞ্চলে তিন হাজার মিটার উঁচু পর্বত দখলের দাবি করেছে আজারবাইজান। সংঘর্ষে নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে একাংশ আজারবাইজানের দখলে যাবার তথ্য নিশ্চিত করেছে আরমেনিয়া।

ওই অঞ্চলটি আন্তর্জাতিক আইনে আজারবাইজানের হলেও খ্রিষ্টান আরমেনীয়রা সেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ। নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে সামরিক আইন ও কারফিউ জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। ওই অঞ্চলের আশাপাশে একই পদক্ষেপ নিয়েছে দু’দেশ। এই ঘটনায় ফোনালাপ করেছেন আরমেনিয়ার পক্ষ নেয়া রাশিয়া ও আজারবাইজানের পক্ষ নেয়া তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভের সাথে ফোনালাপে সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেসিপ তাইয়েপ এরদোগান। এদিকে, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে ফোনালাপের পর তুরস্কের যেকোন আগ্রাসন চেষ্টার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ার করেছেন আরমেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান।

You may also like

১৯ অক্টোবর, সোমবার ২০২০

সকাল ৮:৩০ : অনুষ্ঠান ‘দিন প্রতিদিন’। সকাল ১০:৩০