কুয়েতে নতুন আইন;বাংলাদেশিদের কি হবে !

কুয়েতের মোট জনসংখ্যার ৭০ ভাগই বিদেশি নাগরিক। দেশটি চাচ্ছে বিদেশিদের সংখ্যা ৩০ ভাগে নামিয়ে আনতে। এতে করে অর্ধেক বাংলাদেশি ফেরত আসার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা। তবে দেশটির বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন, নতুন আইন মানে এখনই বিদেশিদের ফিরিয়ে দেবে এমনটি নয়। প্রবাসী কল্যাণ মন্তণালয়ের সচিব জানিয়েছেন, কর্মীদের যাতে সমস্যা না হয় সে বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে ২৭ অক্টোবর আন্তমন্ত্রণালয় সভা করা হবে। তেল সমৃদ্ধ অর্থনীতির দেশ কুয়েত। দেশটিতে মোট জনসংখ্যা ৪৫ লাখের মতো। এর মধ্যে ৩৪ লাখই বিদেশি। অর্থাৎ মোট জনসংখ্যার ৭০ ভাগই বিদেশি। মঙ্গলবার অভিবাসী বিষয়ক নতুন আইন পাশ করেছে দেশটির সংসদ। এর মূল উদ্দ্যেশ্য বিদেশি নাগরিকদের সংখ্যা কমিয়ে ৩০ ভাগ করা।

কুয়েতে অন্তত সাড়ে তিন লাখ বাংলাদেশি রয়েছে। নতুন এই আইনে কতোটা প্রভাব পড়তে পারে এই প্রবাসীদের ওপর? এমন প্রশ্ন ছিলো দেশটিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের কাছে। শ্রম অভিবাসন বিশ্লেষকরা মনে করছেন, নতুন আইনের দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বাংলাদেশি কর্মীরা। তাই কর্মীদের সুরক্ষায় এখনই কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়াতে হবে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব বললেন, বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখছেন তারা। এবিষয়ে কী করণীয় তা ঠিক করতে শিগগিরই আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করার কথা জানান তিনি।  অন্যদিকে, বাংলাদেশের আরেকটি বড় শ্রমবাজার ওমানেও বিদেশি কর্মী কমানোর প্রস্তাবনা দিয়েছে দেশটির সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। নিজেদের নাগরিকদের কাজে লাগাতেই এই উদ্যেগ বলে জানিয়েছে ওমান সরকার। মিরাজ হোসেন গাজী, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

গোল্ডেন মনিরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি এলাকাবাসির

গোল্ডেন মনিরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও তার বাবার নামে