হুইল চেয়ারে করে আদালতে খালেদা জিয়া

প্রচণ্ড অসুস্থতার কথা জানিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, এখানে ন্যায় বিচার নেই। বারবার আদালতে হাজিরা দেয়া তার পক্ষে সম্ভব নয়। আদালতকে যত ইচ্ছা সাজা দিতেও বলেছেন তিনি। কোন সিনিয়র আইনজীবী নেই জানলে আদালতে আসতেন না বলেও জানান বেগম খালেদা জিয়া। পরে ১২ ও ১৩ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানির তারিখ দেন বিচারক এম. আখতারুজ্জামান। 

মঙ্গলবারের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, বুধবার জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা নেয়া হয় নাজিমউদ্দিন রোডের পুরান ঢাকা কেন্দ্রী কারাগারের প্রশাসনিক ভবনের সাত নম্বর কক্ষের অস্থায়ী আদালতে। পুরোনো কারাগার এলাকায় নেয়া হয় কঠোর নিরাপত্তা। বিভিন্ন মোড়ে মোতায়েন করা হয় অতিরিক্ত পুলিশ। দুপুর বারোটায় হুইল চেয়ারে করে সেখানে আনা হয় বেগম খালেদা জিয়াকে।

শুনানিতে তার কোনো আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন না। এজলাসে বিএনপি চেয়ারপারসন জানান, তিনি অসুস্থ, বারবার আদালতে আসতে পারবেন না। এভাবে বসে থাকলে পা ফুলে যায় জানিয়ে বলেন, যতো ইচ্ছা ততো সাজা দিতে। বলেন, উপস্থিত থাকলে যে সাজা হবে, উপস্থিত না থাকলেও তা-ই হবে।

তার কোনো সিনিয়র আইনজীবী নেই, সেটা জানলে আসতেন না বলেও জানান বেগম খালেদা জিয়া। এক সপ্তাহ আগে আদালত পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিলেও মঙ্গলবার কেন প্রজ্ঞাপন জারি করা হলো- এ প্রশ্নও করেন তিনি? পরে দুদকের আইনজীবী আদালতকে জানান, আসামীপক্ষের আইনজীবীদের বিষয়টি জানানো হয়েছে। এমনকি বকশীবাজার আদালতে প্রজ্ঞাপনের নোটিশও টাঙ্গানো রয়েছে।

দিপন দেওয়ান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

পুঁজিবাজারে এখনো কারসাজি চলছে: অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেছেন, কিছু