চয়ন হত্যা মামলায় তিনজনের মৃত্যুদণ্ড

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের মাষ্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্র এরশাদুল ইসলাম চয়ন হত্যা মামলায় রায়ে তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড ও সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন কিশোরগঞ্জের একটি আদালত। কিশোরগঞ্জ প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো: আব্দুর রহিম এ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিরা হল, আব্দুল আওয়াল, আল আমিন ও সুফল মিয়া। ২০০৫ সালের দুই ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জের টান সিদলা গ্রামের আসামী আব্দুল আওয়াল, আল আমিন ও সুফল মিয়া সাথে নিহতের পরিবারের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় এরশাদুল ইসলাম চয়নকে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আব্দুল আওয়াল ও সুফল মিয়া এবং যাবজ্জীবনদন্ডপ্রাপ্ত আসামী সোহেল মিয়া পলাতক রয়েছে। বাকিরা রয়েছেন জেল হাজতে। এদিকে, ফরিদপুরের সালথার নটখোলা গ্রামে গঞ্জর খাঁ ও মোসা মোল্লা নামে দুই ব্যক্তিকে খুনের ঘটনায় ১৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। দুপুরে বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. মতিয়ার রহমান এ আদেশ দেন।

রায় ঘোষণার সময় ১১জন আসামি আদালতে উপস্থিত ছিল। বাকি দু’জন পলাতক রয়েছে। অন্যদিকে, নাটোরের বাগাতিপাড়ায় স্ত্রী হ্ত্যার অভিযোগে স্বামী মারুফ হাসানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। দুপুরে নাটোরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মকবুল আহসান এই রায় দেন।

You may also like

আজও আন্দোলনে উত্তাল বুয়েট

আবরার ফাহাদ হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বুয়েটে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন