১৯ বছর পর রায়, ১০ জনের মৃত্যুদণ্ড

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলা মামলার রায়ে দশ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও দুইজনকে খালাস দিয়েছে আদালত। সোমবার সকালে ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক রবিউল আলম এ রায় দেন। রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, আওয়ামী লীগ ও সিপিবিকে নিশ্চিহ্ন করতেই করা হয়েছিল বোমা হামলাটি। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন আসামীপক্ষের আইনজীবী।

যেই তারিখে হামলা কাকতালীয়ভাবে ১৯ বছর পর সেই তারিখেই মামলার রায়। ২০০১ সালের বিশ জানুয়ারি রাজধানীর পল্টনে সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলায় মারা যায় পাঁচজন। আহত হয় শতাধিক। পার্টির তৎকালীন সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান খান বাদী হয়ে মতিঝিল থানায় মামলা করেন। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি হান্নানসহ ১৩জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দেয় সিআইডি। ২০১৪ সালের চার সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। আরেকটি মামলায় হুজি নেতা মুফতি হান্নানের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় দীর্ঘ ১৯ বছর পর ১২ আসামির বিরুদ্ধে রায় দেয় আদালত। রায়ে দশ জনকে মৃত্যুদণ্ডের সাথে খালাস দেয়া হয়েছে মশিউর রহমান এবং রফিকুল ইসলাম মেরাজকে।

আর মৃত্যুদণ্ডিতরা হচ্ছে- মুফতি মাইনুদ্দিন, মাওলানা সাব্বির আহমেদ, শওকত ওসমান ওরফে শেখ ফরিদ, আরিফ হাসান সুমন, জাহাঙ্গীর আলম বদর, মুহিবুল মুস্তাকিম, আনিসুল মুরসালিন, মুফতি আব্দুল হাই, মুফতি শফিকুর রহমান ও নুরুল ইসলাম। দশ জনের মধ্যে ছয় আসামি পলাতক। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাবেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। মামলায় জবানবন্দি নেয়া হয়েছে ১০৭ সাক্ষির মধ্যে ৩৮জনের।

জিয়া খান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

পিলখানা হত্যাকাণ্ডের ১১ বছর আজ

বিডিআর বিদ্রোহের ভয়াল ২৫ ফেব্রুয়ারি আজ। ২০০৯ সালের