সালমান শাহের মৃত্যু হত্যা নয়, আত্মহত্যা : পিবিআই

সিআইডি’র পর এবার পিবিআইও বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা সালমান শাহর মৃত্যকে আত্মহত্যা বললো। তদন্ত সংস্থা পিবিআই জানায়, সালমান শাহকে খুন করা হয়নি, স্ত্রী সামিরার সাথে কলহ ও চিত্র নায়িকা শাবনুরের সাথে অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতাসহ পাঁচ কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন। সোমবার সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার। এদিকে, পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছেন সালমানের স্বজনরা।

চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার ইমন ওরফে চিত্র নায়ক সালমান শাহ। তুমুল জনপ্রিয় এই নায়ক এখনো দাগ কাটে ভক্তদের হৃদয়ে। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সালমানের মৃত্যু সহজভাবে মেনে নিতে পারেনি কেউ। ১৯৯৭ সালের ৩ নভেম্বর আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদনে সালমান শাহের মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে সিআইডি। ২০১৪ সালে নারাজি আবেদনে আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনে সালমানের মা নীলা চৌধুরি। ২০১৬ সালে মামলাটির তদন্ত পায় পিবিআই। দীর্ঘ তদন্তের পর সোমবার সংস্থাটির প্রধান বনজ কুমার জানান পাঁচ কারণে আত্মহত্যা করেছিলেন সালমান শাহ।

তদন্তে সালমানের হাতে লেখা সুইসাইডাল নোট পর্যালোচনা করা হয়। যেখানে লেখা ছিলো তাঁর মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ি নয়। এছাড়া সালমানের সাবেক স্ত্রী সামিরা, চিত্রনায়িকা শাবনূর, সালমানের ব্যাক্তিগত সহকারি আবুল হোসেন, দুই গৃহপরিচারিকা মনোয়ারা ও ডলিসহ ৪৪ জনের জবানবন্দি নেয় পিবিআই। ঘটনার আগের দিন প্রেম পিয়াসী ছবির শুটিং সেটে সালমান ও শাবনূরকে অন্তরঙ্গ মুহুর্তে দেখে ফেলে সামিরাহ। তারপর রাতে শাবনূরের তিনবার ফোন কল নিয়ে সালমান ও সামিরার মধ্যে শুরু হয় তুমুল ঝগড়া, এমন তথ্য দেয় পিবিআই।

তবে, পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখান করেছেন সালমানের স্বজনরা। এতকিছুর পরও সালামানের মৃত্যুর কারণ নিয়ে হয়তো ধোঁয়াশা থেকেই যাবে, তবে তাঁর প্রতি ভালোবাসা-সম্মান অনন্তকাল থাকবে ভক্তদের হৃদয়ে।

জিয়া খান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

যতো ক্ষমতাবান হোক, ছাড় নেই সাহেদের: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মোহাম্মদ শাহেদের অপর্কীতির জন্য লজ্জিত