সম্ভাবনা, আশা-আকাঙ্খার দোলচালে দুলছে টাইগাররা

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিলেট টেস্টে কঠিন সমীকরনের সামনে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ। সম্ভাবনা, আশা-আকাঙ্খার দোলচালে দুলছে টাইগাররা। জিততে হলে রান তাড়া করার ক্ষেত্রে নিজেদের নতুন রেকর্ড গড়তে হবে বাংলাদেশ দলকে। দ্বিতীয় ইনিংসে ১৮১ রানে অল আউট হয়ে বাংলাদেশের সামনে ৩২১ টার্গেট দিয়েছে জিম্বাবুয়ে। দ্বিতীয় ইনিংসেও ৫ উইকেট নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। বাংলাদেশের চতুর্থ বোলার হিসেবে এক টেস্টে দশ উইকেট পেলেন এই বাঁ-হাতী স্পিনার। তৃতীয় দিন শেষে কোন উইকেট না হারিয়ে ২৬ রান করেছে বাংলাদেশ। সিলেট থেকে লিটন খানের ক্যামেরায় মনির হোসেন খানের রিপোর্ট।হঠাৎ করেই যেন এক যুগ পেছনে ফিরে গেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট। ১০-১৫ বছর আগে টেস্ট ম্যাচে একটা দিনের খেলা হতো- আর প্রতিদিন হতাশার মাঝে খুজতে হতো ইতিবাচক দিক। থাকতো ব্যক্তিগত মাইলফলক ছোয়ার আনন্দ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই টেস্টের প্রথম তিনটি দিনই পিছিয়ে বাংলাদেশ। তবে এর মাঝেই খুঁজতে হচ্ছে অনুপ্রেরণা।তৃতীয় দিনটি যদিও বল হাতে খুব খারাপ কাটেনি বাংলাদেশের। তৃতীয় দিনেও উইকেট অনেক ব্যাটিং সহায়ক। দিনের প্রথম সেশনে ২ উইকেটে ৯০ রান তুলে বড় সংগ্রহের পথেই ছিলো সফরকারীরা। যতই সময় গেছে কিছুটা ঝুকতে শুরু করেছে বোলারদের দিকে। তারই সুযোগ নিলেন বাংলাদেশ স্পিনাররা।সবচেয়ে বেশি কাজে লাগালেন তাইজুল। প্রথম ইনিংসে ছয় উইকেট নিলেও জিম্বাবুয়ের নিরাপদ স্কোর গড়া আটকাতে পারেননি। দ্বিতীয় সেশনে জ্বলে উঠলেন তাইজুল- মিরাজরা। হ্যামিলটন মাসাকাদজা একাই লড়ে ৪৮ রান কররেও, ঐ সেশনে পড়লো আরো চার উইকেট। প্রথম ছয় উইকেটের চারটিই তাইজুলের। ততক্ষণে বাংলাদেশের চতুর্থ বোলার হিসেবে পেয়েছেন টেস্টে ১০ উইকেটের স্বাদ। শেষ উইকেট নিয়ে পঞ্চমবারের মতো পেয়েছেন ইনিংসে পাঁচ উইকেট।তাইজুলের সঙ্গে মেহেদি হাসান মিরাজ ৩টি ও নাজমুল ইসলাম অপুর দুই শিকারে জিম্বাবুয়ে অল আউট ১৮১ রানে। তবে প্রথম ইনিংসের ১৩৯ রানের লিডটা অনেক বড় হয়ে ওঠায়, সব মিলিয়ে বাংলাদেশের সামনে ৩২১ রানের টার্গেট অনেক কটিনই।এতো রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড নেই বাংলাদেশের। তবে স্বস্তির বিষয় দ্বিতীয় ইনিংসে হারাতে হয়নি কোন উইকেট। শেষ বেলায় ইমরুল কায়েস আর লিটন দাসের অবিচ্ছিন্ন ২৬ রানের জুটিতে পাহাড় টপকানোর স্বপ্ন টাইগারদের চোখে।

You may also like

মালিবাগ কাঁচাবাজারে আগুন, ক্ষতিগ্রস্ত দুই শতাধিক দোকান

রাজধানীর মালিবাগ কাঁচাবাজারে আগুনে প্রায় দুই’শ দোকান পুড়ে