স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছে ঢাকা মেডিকেল

অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের খোঁজে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে স্বজনদের কান্নার রোল থামছেই না। শরীরের বেশির ভাগ পুড়ে যাওয়ার কারণে অনেকেই শনাক্ত করতে পারছেন না লাশ। ৬৭টি লাশের ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। লাশের পরিচয় নিশ্চিতের পর বেশ কিছু মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তরও করা হয়েছে। ঢাকা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক লাশ দাফন ও অন্যান্য খরচের জন্য দেয়া হচ্ছে বিশ হাজার টাকা করে।

এ কান্না স্বজন হারানোর, প্রিয়জন হারিয়ে এমন আর্তনাদ আর আহাজারি থামার নয়। অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার পর থেকেই ভীড় করতে থাকে স্বজনরা। আগুনে পোড়া মৃতদেহগুলো বডি ব্যাগে ভরে মর্গে নিয়ে আসে ফায়ার সার্ভিস। বেলা যত বাড়তে থাকে হারানো স্বজনের খোঁজে মর্গে আসা লোকজনের সংখ্যাও বাড়তে থাকে। পাশাপাশি আর্তনাদ, আহাজারি আর আর্তচিৎকারও বাড়তে থাকে।

প্রিয় মানুষ হারিয়ে অনেকে পাগলপ্রায়। লাশের ভীড়ে কত মানুষ যে খুঁজে বেড়াচ্ছেন তার চেনা মানুষকে তার সঠিক সংখ্যা বলা কঠিন। শরীরের বেশীরভাগ অংশ আগুনে পোড়ার কারণে অনেকে শনাক্ত করতে পারছেন না মৃতদেহ। চিকিৎসক জানান, প্রত্যেকেরই মৃত্যু হয়েছে আগুনে পুড়ে।

ময়নাতদন্ত শেষে শনাক্ত করা মৃতদেহগুলো স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। না ফেরার দেশে চলে যাওয়া মানুষগুলোকে কফিনে ভরে শেষ ঠিকানায় পৌঁছে দিতে রওনা হন স্বজনরা। সঙ্গে শুধুই আহাজারি। প্রত্যেকটি লাশ দাফনের জন্য ব্যবস্থা নেয় ঢাকা জেলা প্রশাসন। আহতদেরও চিকিৎসা চলছে ঢাকা মেডিকেলে। বেশিরভাগের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

You may also like

সড়ক দুর্ঘটনায় দুই স্কুলশিক্ষার্থীসহ নিহত ৮

সড়ক দুর্ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, নাটোর, খুলনা ও