বন্যার পানি নামার পর ঘুরে দাঁড়ানোর সংগ্রামে বানভাসীরা

বন্যার পানি নামার পর ঘুরে দাঁড়ানোর সংগ্রামে বানভাসীরা। বিধ্বস্ত বাড়িঘর নিয়ে বিপাকে তারা। পুনর্বাসনে সরকারের দ্রুত উদ্যোগ চান ক্ষতিগ্রস্তরা। কোথাও কোথাও ভাঙন আতঙ্কে রয়েছেন দুর্গতরা। কুড়িগ্রামে টানা ২০ দিন স্থায়ী বন্যার পানি নেমে গেছে। কিন্তু রেখে গেছে ক্ষত। দুর্গতদের বাড়ি-ঘরের বেহাল দসা। বন্যার তোড়ে ভেসে গেছে সব। এখন এসব মেরামত করে ঘুরে দাঁড়াতে সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতার দিকে তাকিয়ে হতভাগ্যরা। কুড়িগ্রামে জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন জানান, এ জেলায় এবার ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৯ উপজেলার ২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭২টি বাড়িঘর। এদিকে, সিরাজগঞ্জে পানি কমলেও ভাঙ্গন আতংকে নদী তীরের মানুষ।

এরইমধ্যে ধসে গেছে এনায়েতপুরের বেতিল স্পার বাঁধের ৫০ মিটার। বালি ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। বন্যা আর ভাঙনে গাইবান্ধায় প্রায় ৬০ হাজার বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পানি নেমে গেলেও ঘরে ওঠা মুশকিল হয়ে দাড়িয়েছে দুর্গতদের। জামালপুরে বন্যার পানি নামার সাথে বেরিয়ে আসছে ক্ষত। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২ লাখ ৫৬ হাজার ৫৩০টি পরিবার। চরম দুর্ভোগে তারা।

 

You may also like

ধামরাইয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণের দায়ে ৪৮ বছরের এক ব্যক্তি আটক

ধামরাইয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণের দায়ে মো: গোলাম