রাইড শেয়ারিং চালুর পর থেকে আতংকের নাম ‘মোটর সাইকেল’

রাইড শেয়ারিং চালুর পর থেকে আতংকের নাম ‘মোটর সাইকেল’। সারাদেশে প্রায় ২৭ লাখ ও ঢাকায় চলছে প্রায় ৭ লাখ মোটরসাইকেল। বাইরের জেলা থেকে অনেকে ঢাকায় এসে শুরু করেছে রাইড শেয়ারিং। চেনা নেই রাস্তাঘাট, বেড়েছে দুর্ঘটনা। অনেকে উবার-পাঠাওয়ের মোটরসাইকেলে চড়ে বরণ করেছেন পঙ্গুত্ব। এসব নিয়ন্ত্রণে রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলো কাউকে তোয়াক্কাই করছে না। অ্যাপস ভিত্তিক রাইড নিয়ে দুই পর্বের ধারাবাহিক রিপোর্টের আজ শেষ পর্ব। রিপোর্ট করেছেন দিপন দেওয়ান, ছবি তুলেছেন আল মাসুম সবুজ।

মাহাদী হাসান, বেসরকারি টেলিভিশনে চাকরি করেন। অফিস শেষ করে রাইড শেয়ারিং পাঠাওয়ের মোটর সাইকেলে চড়ে বাসায় ফিরছিলেন। চালকের অসাবধানতায় দুর্ঘটনা, এক বছর ধরে পা ভেঙ্গে বসে আছেন ঘরে। বছরখানেক আগে চিকিৎসক রাজিব হোসেন কাজ শেষে ধানমন্ডি থেকে পাঠাওয়ের মোটরসাইকেলে চড়ে বাসায় ফিরছিলেন, মহাখালী ফ্লাইওভারের ওপরে দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। চালক ও যাত্রী দুজনই মারাত্মক আহত হন। শুধু দুর্ঘটনাই নয়, রাইড শেয়ার করে ঝামেলায় পড়তে হয় অনেক নারীকেও। জরুরি প্রয়োজনে উবার মোটোতে কল করেছিলেন নিশা মাহমুদা। চালকের দেরি হওয়ায় রাইড ক্যানসেল করেন।

এরপর চালক কল দিয়ে বাজে ব্যবহার করেন।এক পর্যায়ে ঐ উবার চালক নিশার মোবাইল নাম্বার ছড়িয়ে দেয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এমন নানা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় আস্থা হারাতে বসেছে রাইড শেয়ারিং। বিআরটিএ এখন পর্যন্ত ১২টি প্রতিষ্ঠানকে রাইড শেয়ারিংয়ের অনুমোদন দিয়েছে। এর ফলে রাজধানীতে বেড়েছে মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশনের হিড়িক। ঢাকায় ২০১৭ সালে ৭৫ হাজার ২৫১টি, ২০১৮ সালে ১ লাখ চার হাজার ৬৪টি এবং চলতি বছরের সাত মাসে ৬১ হাজার ১৩২টি মোটরসাইকেল রেজিষ্ট্রেশন হয়। তবে যাদের বিরুদ্ধে এতোসব অভিযোগ, তাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে এড়িয়ে যায় গনমাধ্যমকে।

পাঠাওয়ের এমডিকে কল করা হলে তা ধরেননি। ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়েও কোন উত্তর মেলেনি। পরে তাদের এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করা হলে প্রশ্ন লিখে পাঠাতে বলেন। তিনদিন পর ব্যস্ততার অজুহাত দেখিয়ে পরের সপ্তাহে যোগাযোগ করতে বলেন। আর উবারের বাংলাদেশ অংশের মুখপাত্রের সংগে যোগাযোগ করা হলে ই-মেইল করতে বলেন। তারপর তাদের পক্ষ থেকে মিডিয়া দেখার দায়িত্বপ্রাপ্ত বেঞ্চমার্ক প্রশ্ন ই-মেইল করতে বলেন।তাদের সাথে বারবার যোগাযোগ করেও কোন সুরাহা হয়নি।

 

You may also like

২৪ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার ২০১৯

সকাল ৮:৩০ : দিন প্রতিদিন বেলা ১১:০৫ :