ভোলার বোরহানউদ্দিনে পরিস্থিতি থমথমে

ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষের ঘটনায় এলাকার পরিস্থিতি এখনো থমথমে। এ ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে। এক মামলায় অজ্ঞাত পাঁচ হাজার জনকে আসামি করা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নজরদারি রয়েছে পুরো এলাকায়। এদিকে, জেলা থেকে এসপি ও ওসিদের প্রত্যাহারসহ ছয় দফা দাবি জানিয়েছে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ। ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সারাদেশে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম।

ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানাকে কেন্দ্র করে রবিবার ভোলার বোরহানুদ্দিন ঈদগাহ ময়দানে পুলিশ-জনতার ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় নিহত হন চারজন। সোমবার সকাল থেকে থমথমে এলাকার পরিবেশ। জেলা স্কুল মাঠে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের ব্যানারে প্রতিবাদ সমাবেশ করত চাইলে তাতে অনুমতি দেয়নি পুলিশ। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রকার সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সোমবার ভোর থেকেই জেলা শহরে বিজিবি, RAB ও পুলিশের টহল অব্যাহত রয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় অজ্ঞাত পাঁচশ’ জনকে আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ। সমাবেশের অনুমতি না পাওয়ায় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের ব্যানারে ভোলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ছয় দফা দাবি জানান নেতারা। ঘোষণা দেয়া হয়েছে মঙ্গলবার কালিনাথ রায়েরবাজার হাটখোলা মসজিদে বিক্ষোভ সমাবেশের।

এদিকে, ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সারাদেশে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। হাটহাজারী মাদরাসায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। অন্যদিকে, ভোলায় সংঘর্ষের ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ওলামা মাশায়েখ ও তৌহীদি জনতা। মাগুরায় বিক্ষোভ করে ইসলামী আন্দোলন।

You may also like

আর্জেন্টিনা-উরুগুয়ে ২-২ গোলে ড্র

মেসির নৈপুণ্যে উরুগুয়ের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ ড্র