ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় সিডরের এক যুগ আজ

আজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর। ২০০৭ সালের এই দিনে ঘুর্ণিঝড় সিডর হানা দিয়েছিলো দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে। এক যুগ পেরিয়ে গেলেও এখনো সেই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারেনি বাগেরহাট, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর উপকূলবাসী। স্বাভাবিক হয়নি সিডর বিধ্বস্ত উপকূলবাসীর জীবনযাত্রা। শুধু তা ই নয় মেরামত করা হয়নি বিধ্বস্ত বেড়িবাধগুলোও। এখনও গড়ে তোলা হয়নি পর্যাপ্ত সাইক্লোন শেল্টার।

এক যুগ আগে সাইক্লোন সিডরে লন্ডভন্ড হয় বাংলাদেশের বিশাল উপকূলীয় অঞ্চল। সেখানকার জীবন-জীবিকা, পরিবেশ, কৃষিসহ বিভিন্ন দিক বিপর্যস্ত হয়েছিল সিডরে। সিডরের এক যুগেও বাগেরহাটে এখনো নির্মাণ হয়নি টেকসই বেড়িবাঁধ। ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগের আতংককে সাথে নেই বসবাস উপকুলবাসির।

এদিকে, বিধ্বস্ত এলাকার মানুষের জন্য সরকার নানা উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক। বরগুনায় এখনো নির্মাণ হয়নি পর্যাপ্ত আশ্রয় কেন্দ্র। সংস্কার হয়নি বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ গুলো। ভয়াবহ দিনটির কথা শরণ করে এখনও আতকে ওঠেন উপকূলবাসী। টেকশই বেড়িবাঁধ এবং পর্যাপ্ত সাইক্লোন শেল্টার গড়ে উঠেনি পটুয়াখালীতেও। সামান্য জোয়ারের পানিতেই তলিয়ে যায় বেশ কিছু গ্রাম। এতে মানুষের ভোগান্তির পাশাপাশি অনেক কৃষিজমি অনাবাধি থাকছে।

ভয়াল সিডরের ক্ষত বুকে নিয়ে বেঁচে আছেন পিরোজপুরের বহু মানুষ। বিধ্বস্ত ব্রিজ, কালভার্ড, ভেড়িবাঁধগুলো এখনও অনেক জায়গায় মেরামত করা হয়নি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে উপকূলীয়বাসীকে রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ নেবে সরকার, দাবি ভুক্তভোগীদের।

You may also like

ভারতের এনআরসি বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি: ফখরুল

স্বাধীনতার ৫০ বছরের দ্বারপ্রান্তে এসে দেশ এখন গণতন্ত্রহীন