কাল জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উদযাপনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

আগামীকাল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একশ’তম জন্মদিন। তাঁর জন্মশতবর্ষ উদযাপনে সমস্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন। করোনা ভাইরাসের কারনে বছরব্যাপী এই আয়োজনের আপাতত সমস্ত গণজমায়েত বাতিল করা হলেও, সাজ-সজ্জা, আতশবাজি, দোয়া-মাহফিল, খাবার বিতরনের কর্মসূচি থাকছে। এছাড়া, এ উপলক্ষে জন্মশতবার্ষিকী জাতীয় কমিটির আয়োজনের সমস্ত অনুষ্ঠান সকল গণমাধ্যমে একযোগে প্রচার করা হবে। এভাবেই প্রতিটি সেকেন্ডে জাতি এগিয়ে যাচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ শুরু হওয়ার সেই মাহেন্দ্র ক্ষণের দিকে। প্রধান সড়কগুলোর মোড়ে মোড়ে ক্ষণগণনার ঘড়িগুলো জানান দিচ্ছে বঙ্গবন্ধুর জন্মউৎসব শুরুর আর দেরি নেই। বছর ব্যাপী সেই উৎসবের সমস্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন। এরই মধ্যে রাজধানীসহ দেশের সমস্ত গুরুত্বপূর্ন স্থাপনা বর্ণিল সাজে সজ্জিত। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন মোড়ে ব্যানার, ফেস্টুন, প্রমাণ সাইজের পোস্টারে জাতি স্মরণ করছে তার মহান নেতাকে।

তবে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রকোপের কারণে মুজিব শতবর্ষ উদযাপনের সমস্ত গণজমায়েত বাতিল করা হয়েছে। তবে গণসম্পৃক্ত করতে অনুষ্ঠানকে সাজানো হয়েছে ভিন্ন আঙ্গিকে। সকালে ধানমন্ডি বত্রিশ নাম্বারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে বঙ্গবন্ধুর একশতম জন্মদিনের কর্মসূচি। এরপর প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে টুঙ্গিপাড়া যাবেন। সেখানে দোয়া-মিলাদ মাহফিলে অংশ নেয়া ছাড়াও, শিশু সমাবেশ, গ্রন্থমেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে।  বাদ জোহর দেশের সকল মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হবে। রয়েছে এতিম ও দুস্থদের মধ্যে খাবার ও মিষ্টি বিতরনের কর্মসূচি। মন্দির, প্যাগোডা, গির্জাসহ সকল ধর্মের উপাসনালয়ে থাকবে বিশেষ প্রার্থনা কর্মসূচি। মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বিকেলে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষন দেবেন। ১৭ মার্চ রাত ঠিক আটটায় জাতির পিতার একশতম জন্মক্ষণ উপলক্ষ্যে সারাদেশে একযোগে প্রদর্শিত হবে আতশবাজি। করোনা ভাইরাসের কারণে গণজমায়েত এড়ানোর জন্য বিদেশী অতিথীদের ভিডিও বার্তাসহ জন্মশতবার্ষিকী জাতীয় কমিটির আয়োজনের সমস্ত অনুষ্ঠান রাত আটটার পর সকল গণমাধ্যমে একযোগে প্রচার করা হবে।

 

You may also like

সামাজিক দূরত্বের কোনো বালাই নেই লঞ্চে

সামাজিক দূরত্বের কোনো বালাই নেই লঞ্চে। যাত্রীরা মানছেন