আজ থেকে যাত্রীবাহী ট্রেন ও নৌ চলাচল বন্ধ

২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে গণপরিবহন লকডাউন করা হয়েছে। আজ থেকে বন্ধ করা হয়েছে সব ধরনের যাত্রীবাহী ট্রেন ও নৌযান চলাচল। তবে সীমিত পরিসরে চলবে ফেরি। এদিকে, ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং। করোনার ভয়াবহতা মোকাবেলায় ‘হোম কোয়ারেন্টিন’ তদারকি করছেন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা। মন্ত্রীরা মঙ্গলবার ভিডিও বার্তায় এসব তথ্য জানান।

করোনা আতঙ্কে পুরো দেশ। এমন বাস্তবতায় সংক্রমণ রোধে সারাদেশে গণপরিবহন লকডাউন করা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ভিডিও বার্তায় জানান ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ঔষধ, জরুরি সেবা, জ্বালানি, পচনশীল পণ্য পরিবহন-এ নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। পরিস্থিতি বিবেচনায় বন্ধ করা হয়েছে সব ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল। তবে চলবে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল পরিবহন। জরুরি সেবা বিবেচনায় সীমিত থাকবে ফেরি চলাচল।ভিডিও বার্তায় জানান নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী।

মানুষের জানমাল নিরাপত্তায় বন্ধ করা হয়েছে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলও। সংবাদ সম্মেলনে রেলপথ মন্ত্রী জানান, শুধু মালামাল ও কন্টেইনারবাহী ট্রেন চলবে। প্রাক প্রাথমিক থেকে সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে তিনি বলেন, পড়ালেখায় যেন ব্যাঘাত না ঘটে এজন্য শনিবার থেকে সংসদ টিভির মাধ্যমে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির ক্লাস সম্প্রচার করা হবে।

এদিকে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার থেকে শুরু করে স্থানীয় সরকারের সব পর্যায়ে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা করোনা মোকাবিলায় কাজ করছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। ভিডিও বার্তায় মন্ত্রী জানান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি বিদেশ ফেরত বা সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকাদের ‘হোম কোয়রিন্টিন’ নিশ্চিত করবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন বলেও জানান মন্ত্রীরা।

 

You may also like

বাংলামোটরে বাসচাপায় নিহত ২

রাজধানীর বাংলামোটরে বাসচাপায় মোটর সাইকেল আরোহীসহ দুইজন মারা