নানা অনিয়মে নরসিংদীতে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

দক্ষ জনবল ও জনসচেতনতার অভাব, পিসিআর ল্যাব না থাকায় পর্যাপ্ত নমুনা সংগ্রহ করতে না পারা এবং নমুনা সংগ্রহে অনিয়মে নরসিংদীতে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। সেই সাথে নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট প্রদানে দেরি, তথ্য গোপন ও সরকারি নির্দেশনার যথার্থ বাস্তবায়ন না হওয়ায় দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়ছে জেলার বিভিন্ন স্থানে। প্রাণঘাতী এই করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা না পেয়ে মারা যাওয়ারও রয়েছে অনেক অভিযোগ।

গত ৬ এপ্রিল নরসিংদীর পলাশের ডাঙ্গায় এক মসজিদের ইমাম করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর থেকে সাংবাদিক, চিকিৎসক, ইঞ্জিনিয়ার, ম্যাজিষ্ট্রেটসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষই আক্রান্ত হচ্ছেন করোনাভাইরাসে।

শিল্পঘন নরসিংদী জেলায় নানা মানুষের আনাগোণা। লকডাউনেও জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে কার্যকর ব্যবস্থা না নেয়ায় জেলায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে করোনা। লকডাউনের মধ্যে সীমিত আকারে খুলে দেয়া হয় নরসিংদীর হাট-বাজার ও বাবুরহাট। করোনা রোগীদের সেবা দিতে ১০০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালকে ৮০ শয্যাবিশিষ্ট কোভিড ১৯ হাসপাতাল ঘোষণা করা। তবে সেখানে নেই চিকিৎসকদের পর্যাপ্ত সুরক্ষা সরঞ্জাম। প্রতিদিন করোনা উপসর্গ নিয়ে জেলা হাসপাতালে নমুনা দিতে গিয়ে নানা হয়রানির শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

তবে করোনার নমুনা রিপোর্ট পাওয়া নিয়ে জটিলতা শিগগিরই কেটে যাবে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন। শুধু প্রশাসন বা চিকিৎসক দিয়ে করোনার সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব নয়। এরজন্য দরকার জনসচেতনতা। জেলায় পিসিআর ল্যাব স্থাপন করে নমুনা সংগ্রহের পরিমাণ বাড়ানো এবং সংগৃহীত নমুনার রিপোর্ট ২৪ ঘন্টার মধ্যে সরবরাহের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ চায় নরসিংদীবাসী।

বাংলাভিশন নিউজডেস্ক।

You may also like

যুক্তরাষ্ট্রে সংক্রমণের রেকর্ড

করোনা মহামারিতে বিশ্বে গেলো কয়েকঘন্টায় আরো দেড় হাজার