কালো টাকার মালিকদের বেপরোয়া হওয়ার শঙ্কা

বিনাশর্তেই কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়ায় আবাসন খাত চাঙ্গার পাশাপাশি করোনায় মন্দা অর্থনীতিতে গতি ফিরবে, আশা আবাসন শিল্প মালিকদের সংগঠন-রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিনের। তবে, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল- টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলছেন, অনৈতিক এ সুবর্ণ সুযোগে আরো বেপরোয়া হবে কালোটাকার মালিকরা। সমাজে বাড়বে বৈষম্য। সংবিধান পরিপন্থী এ প্রস্তাব দুর্নীতি ও অর্থপাচারকে উস্কে দেবে বলে শঙ্কা সুশীল সমাজের।

২৭০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের মেগাসিটি ঢাকায় প্রায় দুই কোটি মানুষের বাস। তাদের একটা অংশের আয় তুলনামুলক কম হবার পরও থাকেন অট্টালিকায়। ছেলে-মেয়েকে অভিজাত স্কুলে পড়াশোনার পাশাপাশি হাঁকান দামি ব্র্যান্ডের গাড়ি। কারো কারো ব্যবসা বা চাকিরর বেতনের চেয়েও বেশি খরচ ফ্ল্যাট ভাড়ায়। আর কারো কারো অবৈধ অর্থ এতো বেশি যার কিছু অংশ উদ্ধার হয় খাট-আলমারির নিচ থেকেও।

ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে নামে-বেনামে সম্পদ লুকানোদের জন্য এবার সুবর্ণ সুযোগ। তাদেরকে অবৈধ এসব অর্থ মাত্র ১০ শতাংশ কর দিয়ে বৈধ করার সুযোগ দিয়েছেন অথর্মন্ত্রী। দেশের সব আইনকে পাশ কাটিয়ে কোনো প্রশ্ন ছাড়া কালো টাকা বিনিয়োগ করা যাবে শেয়ারবাজার। কেনা যাবে সঞ্চয়পত্র, অভিজাত এলাকার জমি কিংবা বিলাসবহুল ফ্ল্যাট।

প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীরাও বলছেন, এ ধরনের অনৈতিক সুযোগ সৎ ব্যবসায়ীদের নিরুৎসাহিত করবে। এতে ক্ষুব্ধ অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরাও। কালো টাকার মালিকদের সাজার পরিবর্তে পুরুষ্কৃত করলে সমাজে দুর্নীতি ও বৈষম্য আরো বাড়বে।

বিশেষ সময়ে ঢালাও সুযোগ দেয়া হলেও এর আগে ১৫ বার সময় পেয়েও তেমন সাড়া দেননি কালো টাকার মালিকরা। এ পর্যন্ত সাদা হওয়া ১৪ হাজার কোটি টাকার মধ্যে ১০ হাজার কোটিই বৈধ হয়েছে ২০০৭ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে। তাই কালো টাকার মালিককে উৎসাহিত না করে অর্থপাচার আইনে দণ্ড দেয়ার সুপারিশ টিআইবির।

জিয়াউল হক সবুজ, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

যতো ক্ষমতাবান হোক, ছাড় নেই সাহেদের: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মোহাম্মদ শাহেদের অপর্কীতির জন্য লজ্জিত