বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি

আবারো বাড়ছে দেশের বিভিন্ন নদ-নদীর পানি। দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে বন্যা। আরো অবনতি হয়েছে মধ্যাঞ্চলসহ উত্তরের বেশ কয়েকটি জেলার বন্যা পরিস্থিতির। ত্রাণ তৎপরতা না থাকায় দুর্গত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি ও শুকনো খাবারের সংকটে ভুগছে দুর্গতরা। এখনো ফুসছে দেশের বেশ কয়েকটি নদনদী। পানির চাপ বেড়েছে মধ্যাঞ্চলে। পানিবন্দি জীবন থেকে কবে মুক্তি মিলবে-নেই সেই আভাস। মানবেতর দিন কাটছে বানভাসীদের। কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র ও ধরলাসহ সব নদ- নদীর পানি বাড়ছেই। দুর্ভোগে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষ। নদী ভাঙনের শিকার হয়ে বিভিন্ন এলাকায় গৃহহীন আরো শতাধিক পরিবার। অনেকেই বাঁধে আশ্রয় নিলেও খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন কাটছে তাদের। গাইবান্ধায়ও বাড়ছে তিস্তা, যমুনা, ব্রহ্মপুত্র ,ঘাঘট ও কাটাখালী নদীর পানি। প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা। সিরাজগঞ্জে যমুনার পানি বাড়ছে হুহু করে। এর মধ্যে ভয়াবহ ভাঙনে গৃহহীন হয়ে পড়ছে নদীপাড়ের মানুষ। দুর্বিসহ দিন কাটছে পানিবন্দি প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষের। জামালপুরে চরম দুর্ভোগে প্রায় ১০ লাখ মানুষ। বন্যার পানিতে তলিয়ে আছে রাস্তা ঘাট ও বাড়ি-ঘর। পানির প্রবল তোড়ে ব্রীজ কালভার্ট ভেঙে যাওয়ার পাশাপাশি দেখা দিয়েছে নদী ভাঙ্গনও।

নাটোরে বানভাসীদের দুর্ভোগ দীর্ঘ হচ্ছে। আত্রাই নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়েই বইছে।পানিবন্দী লাখো মানুষ। বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার যমুনা ও বাঙ্গালী নদীর পানি বাড়ছেই। দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় দেখা দিয়েছে চর্মরোগ। মুন্সীগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবতির্ত রয়েছে। টঙ্গীবাড়ী, লৌহজং ও শ্রীনগরের ১৩টি ইউনিয়নের বেশিরভাগ এলাকা তলিয়ে আছে। পানিবন্দি শতাধিক গ্রামের প্রায় ৭০ হাজার মানুষ। পদ্মার পানিতে তলিয়েছে ফরিদপুরের সাত উপজেলার ৫৪১টি গ্রাম। জেলায় পানিবন্দি দেড় লাখেরও বেশি মানুষ। ১১টি সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রে মানবেতর দিন কাটছে দুর্গতদের। গাজীপুরের কালিয়াকৈরে প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা। বেশ কয়েকটি আঞ্চলিক সড়ক তলিয়েছে পানিতে। সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন কয়েক গ্রামের মানুষের। ভেসে গেছে মাছের খামার, সবজি ও ফসলের ক্ষেতও।

You may also like

হাওরে ট্রলার ডুবিতে দুই শিশুসহ ১৭ জনের প্রাণহানী

নেত্রকোনায় মদনের রাজালিকান্দা হাওরে ট্রলার ডুবে কমপক্ষে ১৭