চাকরি দেয়ার নামে কোটি টাকা জালিয়াতি

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালে চাকরি দেয়ার নামে তিন শতাধিক লোকের কাছ থেকে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্রের সদস্যরা। টাকা হাতিয়ে নেয়ার পর থেকেই ফ্ল্যাশলাইট এন্টারপ্রাইজের এমডি শামীম ও চেয়ারম্যান সুমন অফিস বন্ধ করে গা ঢাকা দিয়েছে। সিভিল এভিয়েশন চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান জানান, এসব প্রতারক চক্র ধরতে জানানো হয়েছে গোয়েন্দাদের।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে বছর কয়েক আগে। কাজটি করছে বিদেশী কয়েকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ২০২৪ সালর মার্চে নির্মাণ কাজটি শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। নির্মাণ কাজে নিযুক্ত রয়েছে প্রায় বারো হাজার লোকবল। কিন্তু এই টার্মিনালে কাজ দেয়ার নামে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের শিক্ষিত ও দরিদ্র লোকজনের কাজ থেকে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে ফ্ল্যাশলাইট এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে।

রাজধানীর মিরপুর ডিওএইচএসের বারো নম্বর সড়কে একটি বাড়ির দ্বিতীয় তলায় মাত্র তিনমাস আগে অফিস নেয় ফ্ল্যাশলাইট এন্টারপাইজ। হঠাৎ করেই সাময়িক বন্ধের নোটিশ দিয়ে গা ঢাকা দেয় প্রতিষ্ঠানটির এমডি শামীম ও চেয়ারম্যান সুমনসহ বেশ কয়েকজন মালিক। এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে কথা বলতে রাজি হননি শামীম। তার বাসার ঠিকানায় গিয়ে কথা হয় তার স্ত্রীর সঙ্গে।

এরপরই শামীম বিভিন্নভাবে নিউজ প্রচার না করার চেস্টা চালায়। সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান বলেন, তারাও জানেন চাকুরী দেয়ার নামে সক্রিয় রয়েছে কয়েকটি প্রতারক চক্রের সদস্যরা। প্রতারনার হাত থেকে সাধারন মানুষকে রক্ষা করতে তৃতীয় টার্মিনালে তথ্য কেন্দ্র খোলা হবে বলেও জানান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান।

জিয়া খান, বাংলাভিশন, ঢাকা।

You may also like

উপ-নির্বাচনের ফলাফল বাতিলের দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ

উপনির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে পুন: নির্বাচনের দাবিতে রাজধানীতে