ঋণ খেলাপিদের প্রতি সরকারের উদারতা দেশের জন্য ভয়ঙ্কর : টিআইবি

খেলাপি ঋণের তীব্রতা এবং তা উদ্ধারে কার্যকর ভূমিকার বদলে খেলাপিদের প্রতি সরকারের উদারতাকে দেশের জন্য ভয়ঙ্কর বলছে ট্যান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবি। প্রতি বছর ৯ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা করে খেলাপি ঋণের সাথে ব্যাংকিং সেক্টরে নানা অনিয়মের ভয়ঙ্কর চিত্র উঠে এসেছে তাদের গবেষণায়। ব্যাংকিং খাতে সুশাসন ও নিরাপদ ব্যবস্থার জন্য ১০ দফা সুপারিশও দিয়েছে টিআইবি।

‘ব্যাংকিংখাত তদারকি ও খেলাপি ঋণ নিয়ন্ত্রণ: বাংলাদেশ ব্যাংকের সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ নিয়ে মঙ্গলবার গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলন করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ। গত এক দশকে ব্যাংকিংখাতে চলমান অস্থিরতা, নৈরাজ্য, দুর্নীতি, ঋণ জালিয়াতি, খেলাপি ঋণের উচ্চ হার ইত্যাদি তুলে আনা হয় গবেষণা প্রতিবেদনে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আমানতকারী তথা সাধারণ জনগণের অর্থ দীর্ঘদিন ধরেই খেলাপি ঋণের মাধ্যমে আত্মসাৎ হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০০৯ সালের শুরুতে দেশের ব্যাংকখাতে খেলাপি ঋণ ছিল ২২ হাজার ৪৮১ কোটি টাকা।

টিআইবির প্রতিবেদনে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফের প্রতিবেদনের কিছু তথ্যও উল্লেখ করা হয়। এতে দেখা যায়, ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত খেলাপি ঋণের সাথে বারবার পুনর্গঠিত ও পুনঃতফসিলী করা এবং উচ্চ আদালত কর্তৃক স্থগিতাদেশ পাওয়া খেলাপি ঋণ যোগ করে ব্যাংকিংখাতে খেলাপি ঋণের প্রকৃত পরিমাণ ছিল দুই লাখ ৪০ হাজার ১৬৭ কোটি টাকা। খেলাপি ঋন আদায়ে যথাযথ পদক্ষেপ না নিয়ে বার বার সরকার ঋন খেলাপীদের পক্ষে ভূমিকা রাখায় উদ্বেগ জানায় টিআইবি।

You may also like

উপ-নির্বাচনের ফলাফল বাতিলের দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ

উপনির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে পুন: নির্বাচনের দাবিতে রাজধানীতে