খালেদা জিয়ার কারাদন্ড নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউরোপিয় ইউনিয়ন

বেগম খালেদা জিয়ার কারাদন্ড নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউরোপিয় ইউনিয়ন-ইউ। দুপুরে আইন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে নিজেদের এই উদ্বেগের কথা জানান ইউ’র মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ইয়ামন গিলমোর। এসময় তিনি প্রশ্ন তোলেন বাংলাদেশের বিচার বহির্ভূত হত্যা কান্ড নিয়েও। তবে আইনমন্ত্রী বলেন, আদালতের মাধ্যমেই বেগম খালেদা জিয়ার বিচার হয়েছে, তাতে সরকারের কিছু করার নেই। আর, ইউ বিচার বহির্বূত হত্যাকান্ডের যে ডাটা তুলে ধরেছে, তা জানা নেই আইনমন্ত্রীর। দু’দিনের সফরে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এসে দুপুরে আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ইউরোপিয় ইউনিয়নের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ইয়ামন গিলমোর। প্রায় এক ঘন্টার বৈঠকে উঠে আসে রোহিঙ্গা সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন ইস্যু। মঙ্গলবার কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে বুধবার মিয়ানমার যাবেন ইউ’র এই প্রতিনিধি। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশকে সহযোগিতারও আশ্বাস দেন গিলমোর।পরে যৌথভাবে সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন আইনমন্ত্রী ও ইউ প্রতিনিধি।

এসময় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার কারাভোগের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন গিলমোর। যদিও তার উদ্বেগের বিষয়টি মানতে নারাজ আইনমন্ত্রী। (বিরোধী দলীয় নেত্রী কারাগারে কেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে। বিষয়টি রাজনৈতিক কিনা তা নিয়েও রয়েছে প্রশ্ন। যদিও এখানে আইনের কথা বলা হচ্ছে, আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলছি তিনি একজন নারী এবং অসুস্থ।) নিউ ইয়র্ক এবং ইউ’র তথ্য অনুযায়ী গত এক বছরে বাংলাদেশে ৪ শ’র ও বেশী বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে জানান গিলমোর। এতে ইউ উদ্বেগ প্রকাশ করলেও বিষয়টি নিজের জানান নেই বলে জানান আইনমন্ত্রী। (বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডের বিষয়ে আমরা মন্ত্রী মহোদয়কে প্রশ্ন করেছিলাম। আমরা জানতে চেয়েছি এ বিষয়ে মন্ত্রী-ই বা কি করছেন আর আইনশৃঙখলা বাহিনীই বা কি করছে!) সংবাদ সম্মেলনে ডিজিটাল অ্যাক্ট নিয়েও কথা বলেন ইউ প্রতিনিধি। এ আইনে অবাধ সাংবাদিকতা বাধাগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন গিলমোর।

 

You may also like

বৃষ্টির বাধা পেরিয়ে শুরু হয়েছে ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট যুদ্ধ

বৃষ্টির বাধা পেরিয়ে আবারো শুরু হয়েছে ভারত- পাকিস্তান