ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানির ‘এফ’ গ্রুপ পর্যালোচনা

১৪ জুন রাশিয়ায় পর্দা উঠছে ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ ফিফা বিশ্বকাপের। এবারো ৩২টি দেশ আট গ্রুপে ভাগ হয়ে লড়বে ফুটবল মহাযজ্ঞের প্রথম রাউন্ডে। প্রতিটি গ্রুপ থেকে কোন দুই দল উঠবে নকআউট পর্বে, তা নিয়ে আগ্রহের কমতি নেই ফুটবলপ্রেমীদের। বিশ্বকাপ নিয়ে আমাদের নিয়মিত আয়োজন ‘কাউন্টডাউন রাশিয়া ২০১৮’তে আজ থাকছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানির ‘এফ’ গ্রুপ পর্যালোচনা।

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নের সুবিধা নিয়েই রাশিয়ায় যাচ্ছে জার্মানি। গত বিশ্বকাপের স্কোয়াড থেকে বেশ কাটাছেঁড়া হলেও শিরোপার জোর দাবি রাখছে জার্মানরা। এবার ‘ডি’ গ্রুপে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের তিন প্রতিপক্ষ মেক্সিকো, সুইডেন ও দক্ষিণ কোরিয়া।

জার্মানি দলের মূল টনিক কোচ জোয়াকিম লো। ২০০৬ বিশ্বকাপে ইয়োর্গেন ক্লিন্সম্যানের সহকারীর দায়িত্ব পালন করার পর তার অধীনেই ২০০৮ ইউরোয় ফাইনাল, ২০১০ বিশ্বকাপ ও ২০১২ ইউরোয় সেমিফাইনাল খেলে ২০১৪ বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় জার্মানি। অভিজ্ঞতা আর তারুণ্যের মিশেলে গড়া দলটির নেতৃত্বে এবারো থমাস মুলার। দু’বছর আগে এই রাশিয়ায়ই মহাদেশীয় টুর্নামেন্ট জিতে স্নায়ুর পরীক্ষায় পাশ করে গেছে জোয়াকিম লো’র তরুণ তুর্কিরা। ফুটবল মহাযজ্ঞে চোখ তাদের ব্রাজিলের রেকর্ড পঞ্চম শিরোপায়।

বিশ্বকাপের নিয়মিত মুখ মেক্সিকোকেই ধরা হচ্ছে এই গ্রুপের দ্বিতীয় শক্তি। উত্তর-মধ্য আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চল থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে রাশিয়ার আসছে তারা। তবে, ফুটবলের মহাযজ্ঞে কেন যেন শেষ ষোলোয় এসে থেমে যায় তাদের সাফল্য। এর আগে ১৫ বার অংশ নিয়ে ১৯৭০ ও ১৯৮৬ সালে এই বাধা পার হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আটকে গিয়েছিল উত্তর আমেরিকার দেশটি। দলটির প্রানভোমরা এবার ইংলিশ ক্লাব ওয়েস্ট হামের ৩০ বছর বয়সী স্ট্রাইকার হাভিয়ের হার্নান্দেস।

দুই আসর পর বিশ্বকাপে ফেরা সুইডেনও দাবি রাখছে নকআউট পর্বে যাওয়ার। যদিও ইউরোপের বাছাই পর্বে প্লে-অফ খেলে রাশিয়ায় যাওয়ার টিকিট পাওয়া সুইডিশরা সেই ১৯৫৮ সালে ব্রাজিলের কাছে শিরোপা হারানোর পর আর পারেনি ফাইনাল খেলতে। এবার, দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়াকেই তাদের বড় সাফল্য ধরছে ফুটবল বিশেষজ্ঞরা।

বিশ্বকাপের আরেক নিয়মিত মুখ দক্ষিণ কোরিয়াকেও দিতে হবে কঠিন পরীক্ষা। ১৯৮৬ সাল থেকে ফুটবল মহাযজ্ঞে খেলে আসলেও কেবল ২০০২ সালেই দাপট দেখিয়েছিল তারা ঘরের মাঠে সেমিফাইনাল খেলে। বাছাই পর্বেও সময়টা ভালো যায়নি। ‘এ’ গ্রুপে রানার্সআপ হয় এশিয়ার ফুটবল পরাশক্তিরা। রাশিয়ায় গোটা দেশ তাকিয়ে থাকবে টটেনহামের জার্সিতে দারুণ এক মৌসুম কাটিয়ে আসা সন হিয়াং মিনের দিকে।

You may also like

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ইংল্যান্ডের সিরিজ জয়

স্বাগতিক শ্রীলংকাকে দ্বিতীয় টেস্টে হারিয়ে সিরিজ জিতলো ইংল্যান্ড।