আজ পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামবে টাইগাররা

নিয়মরক্ষার শেষ ম্যাচে আজ পাকিস্তানের মুখোমখি হচ্ছে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপ মিশনে সেমিফাইনাল স্বপ্ন পূরন হয়নি টাইগারদের। বিদায় বেলায় পাকিস্তানকে হারিয়ে মাথা উচু করেই দেশে ফিরতে চায় মাশরাফি বাহিনি। বাস্তবতায় কোন সম্ভাবনা না থাকলেও হিসেবের অলিক সমিকরন আছে পাকিস্তানের সেমিফাইনাল স্বপ্নে। এ ম্যাচে তারাই চাপে থাকবে মনে করেন টাইগার কোচ স্টিভ রোডস। লর্ডসে দুপুর সাড়ে তিনটায় শুরু হবে ম্যাচটি। ক্রিকেট মহাযজ্ঞ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পথ চলা শুরু ১৯৯৯ সালে। এরপর আরো চারটি বিশ্বকাপ খেলেছে টাইগাররা। এর মধ্যে ২০০৭ সালে জায়ান্ট কিলারের চমক দেখানোর পর ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে ক্রিকেট দুনিয়াকে সামর্থ্যের জানান দেয় লাল সবুজের বাংলাদেশ। ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে সেমিফাইনালে খেলার সুবাদে ওয়ানডেতে ক্রমশ পরাক্রমশীল হয়ে ওঠে টাইগাররা, দলকে ঘিরে বাড়ে বড় প্রত্যাশা।

২০১৯ সালে তাই শেষ চারে খেলার প্রত্যাশায় বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে মাশরাফি বাহিনী। দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তানকে হারিয়ে স্বপ্নটা উজ্জল করে রোডসের শিষ্যরা। কিন্তু লংকানদের সাথে ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হলে এবং প্রত্যাশা জাগিয়েও নিউজিল্যান্ড ও ভারতের বিপক্ষে অমার্জনিয় কিছু ভুলের বড় খেসারত দেয় টাইগাররা। কথায় আছে ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। তার সাথে যদি সহজ রানআউটে দেয়া হয় খেয়ালিপনার পরিচয়, তবে তো আর ম্যাচ জেতা যায়না। এগিয়ে গিয়েও পিছলে পড়তে হয় ভারসাম্য হারিয়ে। হয়েছেও তাই। সেমিতে খেলার স্বপ্ন থাকে অপুর্ণ। পাকিস্তানের বিপক্ষে শেষ ম্যাচটা নিয়মরক্ষার। এ ম্যাচ জিতলে পাঁচে থেকে বিশ্বকাপ শেষ করতে পারবে টাইগাররা। কোচ স্টিভ রোডস এর লক্ষ্য এখন শেষ ম্যাচ জয়। সেমিফাইনালে খেলতে ৮ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট পাওয়া পাকিস্তানের সম্ভাবনা, অসম্ভবকে সম্ভব করার মতো। নিউজিল্যান্ডের সাথে রানরেটে এগিয়ে যেতে হলে বাংলাদেশকে হারাতে হবে প্রায় সাড়ে ৩০০ রানের ব্যবধানে। ক্রিকেট অনিশ্চয়তায় খেলা, তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে ক্রিকেটিয় দৃষ্টিকোন থেকে যা অসম্ভবই বলতে হবে।

You may also like

১৭ জুলাই, বুধবার ২০১৯

বেলা ১২:০৫ : বাংলা সিনেমা বিকেল ৫:২০ :