হৃদরোগের চিকিৎসা সরঞ্জাম আমদানিতে যে ট্যাক্স নেয়া হচ্ছে, তা রোগীদের পকেট থেকেই যাচ্ছে

হৃদরোগের চিকিৎসা সরঞ্জাম আমদানিতে যে ট্যাক্স নেয়া হচ্ছে, তা রোগীদের পকেট থেকেই যাচ্ছে

জীবন রক্ষাকারী হৃদরোগের চিকিৎসা সরঞ্জাম আমদানিতে যে ট্যাক্স নেয়া হচ্ছে, তা শেষ পর্যন্ত সেবা নিতে আসা রোগীদের পকেট থেকেই যাচ্ছে। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, এই ট্যাক্স প্রত্যাহার করা হলে এই রোগের চিকিৎসার খরচ একদিকে কমে আসবে অন্যদিকে তৃণমূল পর্যন্ত পৌছানো যাবে সরকারের চিকিৎসাসেবা।

হৃদয় বা হার্টে রক্ত সরবরাহে ব্যঘাত হলে এ রোগের চিকিৎসায় কমন বিষয় হচ্ছে রিং লাগানো। কতটা রিং লাগবে তাও নির্ভর করে রোগীর হৃদয়ে কতগুলো ব্লক হয়েছে তার উপর। বিশ্বব্যাপী ব্যয় বহুল এই চিকিৎসায় রকম ও দেশ ভেদে একেকটি রিং এর দাম রাখা হয়, এক থেকে দুই লাখ টাকা।

জানা গেছে, প্রতি বছর হৃদয়ে ১৭-১৮ হাজার রিং পরানো হয় দেশের হৃদরোগীদের দেহে। এই রিংয়ের পুরোটাই আমদানি করতে হয় বিদেশ থেকে।

হার্টের জন্য রিং এর মতো পেসমেকার, ভালভ এমনকি তা বসাতে যে মেশিন পত্র, তা আমদানী করতে ট্যাক্স দিতে হয়। এর কারণে বেড়ে যায় চিকিৎসা ব্যয়।

জাতিসংঘের কনভেনশন অনুযায়ি জীবন রক্ষাকারী চিকিৎসা সরঞ্জাম আমদানিতে কোন ট্যাক্স রাখার কথা নয়। সরকার এ বিষয়ে আরো আন্তরিক হলে হৃদয় বা হার্টের রোগীদের দুর্ভোগ কমে আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও

দিনাজপুরে জেএমবির দুই সদস্য গ্রেফতার

দিনাজপুরের রানীগঞ্জ থেকে জেএমবির সারওয়ার-তামিম গ্রুপের সক্রিয় দুই