ব্যাটারিচালিত গাড়ি ও ইজিবাইক উৎসাহিত করতে চার্জিং স্টেশন বসাবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রনালয়

ব্যাটারিচালিত গাড়ি ও ইজিবাইক উৎসাহিত করতে চার্জিং স্টেশন বসাবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রনালয়। এগুলো হবে প্রি-পেইড চার্জিং স্টেশন। বিদ্যুতের অবৈধ ব্যবহার রোধে এ পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। সরকারের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্যাটারি চালিত পরিবহনের চালকরা। যোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রনালয়ের মধ্যে সমন্বয় না থাকলে এ সিদ্ধান্ত সড়কে জটিলতা আরো বাড়াবে।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাত্রীসেবা দিচ্ছে পাঁচ লাখেরও বেশি ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক, আছে ব্যাটারি চালিত রিকশাও। এসব পরিবহনে চার্জ দিতে প্রতিদিন খরচ হয় ৬শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। সরবরাহ লাইন থেকে অবৈধ সংযোগ নিয়েই চার্জ দেয়া এসব পরিবহনে। ফলে বিল থেকে বঞ্চিত হয় বিদ্যুৎ বিভাগ।

এই বিপুল অংকের রাজস্ব ক্ষতি বন্ধে দেশে প্রি-পেইড চার্জিং স্টেশন স্থাপন করা হবে। এরই মধ্যে পাইলট প্রকল্প হিসেবে চারটি চার্জিং স্টেশন স্থাপনও করেছে সরকার। যেহেতু সবসময় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক থাকেনা, তাই চার্জিং স্টেশন স্থাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্যাটারি চালিত পরিবহন সংশ্লিষ্টরা।

উন্নত দেশগুলোতে ব্যাটারিচালিত পরিবহন থাকলেও বাংলাদেশে ইজিবাইক ও রিকশায় ব্যবহার হয় ব্যাটারির। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চার্জিং স্টেশন হলে ছোট পরিবহনের সংখ্যা বাড়বে। তা গনপরিবহন সমস্যা সমাধানে খুব একটা কাজে আসবেনা। সরকার ইজিবাইকের বদলে গণপরিবহনের জন্য ব্যাটারিচালিত বাসকে প্রাধান্য দিলে চার্জিং স্টেশনের উদ্যোগ সফলতা পাবে বলেও মত বিশ্লেষকদের।

You may also like

ফোনালাপ বিকৃতভাবে আংশিক প্রচার হয়েছে: নূর

ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের দাবি, তার ফোনালাপ